খুনের ঘটনায় মুকুল রায়কে গ্রেফতার করা যাবে না, কলকাতা হাইকোর্ট

Mukul Roy can not be arrested for the murder, the Calcutta High Court
কলকাতা হাইকোর্টে মুকুল রায়

আজবাংলা  কৃষ্ণগঞ্জের তৃণমূল কংগ্রেস বিধায়ক সত্যজিত্‍ বিশ্বাস খুনের ঘটনায় মুকুল রায়কে গ্রেফতার না করার নির্দেশ দিল কলকাতা হাইকোর্ট। মুকুল রায়ের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করা হলেও ৭ মার্চ পর্যন্ত তাঁকে গ্রেফতার করা যাবে না। সেই সঙ্গে কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি জয়মাল্য বাগচি ও মনোজিত্‍ মণ্ডলের নির্দেশ দেন, তদন্তে সহায়তা করতে হবে মুকুল রায়কে। পুলিশের তরফে নোটিশ দেওয়া হলে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে জবাব দিতে হবে তাঁকে। আপাতত নদিয়া জেলায় ঢুকতে পারবেন না মুকুল রায়।তবে পুলিশ তদন্তের জন্য তাঁকে সেখানে নিয়ে যেতে পারে। বস্তুত, মুকুল রায়ের বিরুদ্ধে এফআইআর হওয়ার পরেই তিনি দিল্লি চলে গিয়েছিলেন। সোমবার তিনি কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী রাজনাথ সিংহের সঙ্গেও দেখা করেন। সূত্রের খবর, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে তিনি বলেন, তাঁর উপর প্রাণঘাতী হামলাও হতে পারে বাংলায়। তা ছাড়া বিরোধীদের মিথ্যা মামলায় ফাঁসানো হচ্ছে বলেও অভিযোগ করেছিলেন তিনি। হাইকোর্টের এই রায়ের পর আশা করা হচ্ছে শিগগির কলকাতায় ফিরবেন মুকুল রায়। তাঁর নিরাপত্তাও বাড়াতে পারে কেন্দ্র। এদিন হাইকোর্টের রায় ঘোষণার পর মুকুল রায় বলেন, ‘আদালত না থাকলে বাংলায় গণতন্ত্রের অস্তিত্বই থাকত কিনা সন্দেহ’! তাঁর কথায়, ‘গত দেড় বছর ধরে আমি তো লাগাতার এ কথাই বলছি যে বাংলায় পুলিশ রাজ চলছে। যাকে কোনও ভাবেই বাগে আনতে পারছে না তাঁর বিরুদ্ধে ধরে ধরে মিথ্যা মামলা দিচ্ছে পুলিশ। থানার ওসিরা তৃণমূলের ব্লক সভাপতির মতো আচরণ করছেন। তবে তৃণমূল বুঝতেও পারছে না ওদের পাপের ঘরা ভরে গেছে। এবার পতনের পালা’। এরপরই নদিয়ার জেলা তৃণমূল সভাপতি গৌরীশঙ্কর দত্তকে আইনি নোটিশ পাঠানোর পাশাপাশি কলকাতা হাইকোর্টে আগাম জামিনের আবেদন করেন মুকুল রায়। তিনি অভিযোগ করেন, তাঁকে মিথ্যা মামলায় ফাঁসানো হচ্ছে। বিরোধীদের শায়েস্তা করতে ইদানীং এই সব করছে তৃণমূল সরকার। বুধবার ওই মামলার শুনানিতেই রায় ঘোষণা করে বিচারপতিদ্বয় বলেন, কী তদন্ত হয়েছে তা ৫ মার্চের মধ্যে হলফনামা দিয়ে জানাতে হবে আদালতে। তার আগে মুকুল রায়কে জেরা করতে হলে তাঁকে চব্বিশ ঘন্টা আগে নোটিশ দিতে হবে। অন্যদিকে মুকুল রায়কেও তদন্তে সহযোগিতা করার নির্দেশ দিয়েছে আদালত।