শাসক দলের হয়ে কাজ না করায় রহস্যজনক ভাবে নিখোঁজ নদিয়ার নির্বাচনী আধিকারিক অর্ণব রায়

নির্বাচনী আধিকারিক অর্ণব রায়
নির্বাচনী আধিকারিক অর্ণব রায়

আজবাংলা নদিয়া    রহস্যজনক ভাবে নিখোঁজ হয়ে গেলেন নদিয়ার এক নির্বাচনী আধিকারিক। তিনি ইভিএম-ভিভিপ্যাটের দায়িত্বে ছিলেন। অর্ণব রায় নদিয়া জেলায় একশো দিনের প্রকল্পে কর্মরত ইভিএম-ভিভিপ্যাট সংক্রান্ত যাবতীয় বিষয় দেখভালের দায়িত্বে ছিলেন। থাকতেন কৃষ্ণনগরে নদিয়া জেলাশাসকের কার্যালয় সংলগ্ন সরকারি আবাসনে। তাঁর স্ত্রী অনীতা যশও একশো দিনের প্রকল্পের কর্মী। নদিয়া জেলার ভোটপ্রক্রিয়া পরিচালনার জন্য অস্থায়ী নির্বাচনী কার্যালয় তৈরি হয়েছে বিপ্রদাস পাল চৌধুরী পলিটেকনিক কলেজে। বৃহস্পতিবার সকালের দিকে বেরিয়ে ওই পলিটেকনিক কলেজে যান অর্ণববাবু। তার পর বিকেলেও বাড়ি না ফেরায় তাঁর স্ত্রী খোঁজ খবর শুরু করেন। তখনই জানা যায়, তিনি নিখোঁজ। তবে গাড়িটি তখনও পলিটেকনিক কলেজেই ছিল। রাত ১১টা নাগাদ জেলা প্রশাসন এবং পরিবারের পক্ষ থেকে কোতোয়ালি থানায় নিখোঁজের অভিযোগ দায়ের হয়।জেলা প্রশাসনের একটি সূত্রে দাবি, নির্বাচন পরিচালনা সংক্রান্ত কিছু বিষয় নিয়ে জেলাশাসকের সঙ্গে সংঘাত হয়েছিল অর্ণববাবুর। সেই কারণে নিখোঁজ কিনা, তাও স্পষ্ট নয়। আগামী ২৯ এপ্রিল কৃষ্ণনগর লোকসভা কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ হবে। তার আগে নির্বাচনী অফিসারের রহস্যজনকভাবে নিখোঁজ হয়ে যাওয়ার ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে।তবে জেলাশাসক সুমিত গুপ্তা বলেন, ‘‘অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক ঘটনা। আমরা রাজ্যের মুখ্য নির্বাচনী আধিকারিকের দফতরে বিষয়টি জানিয়েছি। পুলিশ তদন্ত শুরু করেছে। জেলা প্রশাসনের তরফে ওই অফিসারকে খুঁজে বার করার সব রকম চেষ্টা চলছে। পুলিশ তদন্তে নেমে জানতে পেরেছে, অর্ণববাবুর মোবাইলের শেষ টাওয়ার লোকেশন পাওয়া গিয়েছে শান্তিপুর। তার পর থেকেই তাঁর মোবাইল সুইচড অফ হয়ে গিয়েছে। ফলে এক দিকে যেমন তীব্র রহস্য দানা বেঁধেছে, তেমনই তদন্তকারী অফিসাররাও ধন্দে পড়েছেন। রাজনৈতিক বিশ্লেষক ধারনা জেলাশাসকের কথায় শাসক দলের হয়ে কাজ না করায় রহস্যজনক ভাবে নিখোঁজ করে দেওয়া হয়েছে নির্বাচনী আধিকারিক অর্ণব রায়কে।