জেনে নিন আরশোলা তাড়ানোর সহজ উপায়....

জেনে নিন আরশোলা তাড়ানোর সহজ উপায়....

আজ বাংলা:  আরশোলার তাণ্ডবে অতিষ্ট আমাদের জীবন। হয়তো মহিলারা সাপ দেখলেও হয়তো ততটা ভয় পান না, যতটা ভয় তাঁরা একটা আরশোলা দেখলে পান!


এই আরশোলাকে আপাত দৃষ্টিতে নিরীহ গোছের সাধারণ পোকা মনে হলেও এটি কিন্তু অত্যন্ত ক্ষতিকর! কারণ, আরশোলা ময়লা আবর্জনা থেকে উঠে আপনার সারা ঘরময় ঘুরে বেড়ায়, খাবার-দাবারের উপর হেঁটে চলে বেড়ায়।


যার ফলে আরশোলা গায়ে বা পায়ে লেগে থাকা ক্ষতিকর জীবাণু আমাদের খাবারের সংস্পর্শে আসে আমাদের ক্ষতি করে। তবে মাত্র এক মিনিটেই রান্নাঘর থেকে আরশোলা দূর করার সহজ উপায় ৷ 


হ্যা রান্নাঘর এমন একটি জায়গা যেখানে খাবার, খাবারের টুকরো তেল মশলা বা যন্ত্রতন্ত্র পড়ে থাকে ফলে নোংরা হয় ৷ 

তৈলাক্ত রূপে খাবার দাবার পড়ে থাকলে বা অযথা নোংরা হলে আরশোলা হবে ৷ আরশোলা থেকে মুক্তি পেতে বেশ কয়েকটি সহজ পদ্ধতি রয়েছে যা মানলেই কেল্লাফতে করা সম্ভব ৷ 

প্রতিদিন মাত্র এক মিনিট রান্না ঘরের আনাচে কানাচে পরিষ্কার করতে সময় নিলেই আরশোলা আর থাকবেনা ধারে কাছে ৷ তবে তা কী করে? সামান্য একটু গুঁড়ো সাবান একটু জল ও ন্যাকড়া দিয়ে মুছে দিলেই জায়গাটা পরিষ্কার থাকবে ফলে আসবেনা আরশোলা ৷ 

অযথা খাবার দাবার বা খাবার দাবারের অংশ বিশেষ যে না পড়ে থাকে রান্নাঘরে সেই দিকে খেয়াল রাখতে হবে ৷ তবে বসবেনা আরশোলা ৷ নিয়মিত রান্নাঘর পরিষ্কার করলেই ধারে কাছে আর আরশোলা আসবেনা ৷ 

বোরিক পাউডার মূলত একধরণের অ্যাসিডিক উপাদান যা পোকামাকড়ের যন্ত্রণা কমাতে সহায়ক। তবে আরশোলার উপদ্রব বন্ধ করার ক্ষেত্রেও বোরিক পাউডারের ব্যবহার করা চলে।


 ১ চামচ বোরিক পাউডার, ২ চামচ ময়দা বা আটা আর ১ চামচ কোকো পাউডার এক সঙ্গে ভাল করে মিশিয়ে নিয়ে এই মিশ্রণটি বাড়ির সব কোনায় কোনায় ছড়িয়ে দিন। আরশোলা এই মিশ্রণে আকৃষ্ট হয়ে বোরিক পাউডার খেয়ে মারা পড়বে। 


সপ্তাহে তিন দিন করে অন্তত দু’ সপ্তাহ এই পদ্ধতিটি ব্যবহার করতে পারলে আরশোলার উপদ্রব থেকে একেবারে মুক্তি পাওয়া যাবে।
এই ভাবেই প্রতিদিন একটু সময় দিলেই চিরতরে আরশোলার থেকে মুক্তি পাওয়া যায় ৷