মালেগাঁও বিস্ফোরণ মামলা ৮ অভিযুক্তের বিরুদ্ধেই চার্জ গঠন

Malegaon blast case 8 Charge formation against
মালেগাঁও বিস্ফোরণ

আজবাংলা ২০০৮ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর মুম্বই থেকে প্রায় ২৭০ কিমি দূরে মালেগাঁও কেঁপে ওঠে প্রচণ্ড বিস্ফোরণে। বিস্ফোরণে প্রাণ হারিয়েছিলেন সাতজন নিরীহ মানুষ, আহত হয়েছিলেন প্রায় শতাধিক। তারপরই তদন্তকারীদের হাতে গ্রেপ্তার হয়েছিলেন অনেকেই ।  ২০০৮ সালে হেমন্ত কারকরের নেতৃত্বে এই মামলার তদন্ত শুরু করে মহারাষ্ট্র পুলিশের সন্ত্রাসদমন শাখা। ওই বছরই মুম্বই হামলায় শহিদ হন তিনি। তারপর ২০১১ সালে মালেগাঁও বিস্ফোরণের তদন্ত ভার এনআইএ-র হাতে তুলে দেওয়া হয়।তদন্তকারীদের দাবি, ওই বিস্ফোরণের নেপথ্যে রয়েছেন কর্নেল পুরোহিত। শুধু তাই নয়, ‘অভিনব ভারত’ নামের সংগঠন তৈরি করে পুরোহিত|  গ্রেপ্তার হওয়ার ৯ বছর পরও তাঁর বিরুদ্ধে চার্জ গঠনে ব্যর্থ হয় এনআইএ। বাধ্য হয়ে গত বছর কর্নেল পুরোহিতকে জামিন দেয় সর্বোচ্চ আদালত। পুরোহিত অভিযোগ করেন তাঁর বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করা হয়েছে। এদিকে এনআইএ আদালতে তখনও চলছিল মামলা। আজ মামলার চার্জ গঠনের শুনানির উপর স্থগিতাদেশ চেয়ে বম্বে হাই কোর্টেরও দ্বারস্থ হন পুরোহিত। কিন্তু সোমবার তাঁর আবেদন খারিজ করে বম্বে হাই কোর্ট। জানিয়ে দেয় চার্জ গঠনে কোনও বাধা নেই। তারপরই আজ পুরোহিতের বিরুদ্ধে চার্জ গঠনের সিদ্ধান্ত জানায় আদালত। যদিও পুরোহিতের জন্য স্বস্তির খবর, তাঁর করা রিভিউ পিটিশন গ্রহণ করেছে আদালত। লেফটেন্যান্ট কর্নেল প্রসাদ পুরোহিত-সহ সমস্ত অভিযুক্তদের বিরুদ্ধেই সন্ত্রাসমূলক ষড়যন্ত্র, খুন এবং অন্যান্য অপরাধের প্রেক্ষিতে চার্জ গঠন করা হয়েছে। যদিও, চার্জ গঠন হওয়ার পরই ৭ অভিযুক্তেরই দাবি, তারা নির্দোষ। এই মামলার পরবর্তী শুনানি আগামী ২ নভেম্বর, শুক্রবার। এই মামলায় অপর অভিযুক্তরা হল-সাধ্বী প্রজ্ঞা সিং ঠাকুর, মেজর (অবসরপ্রাপ্ত) রমেশ উপাধ্যায়, সমীর কুলকার্নি, অজয় রাহিরকার, সুধাকর দ্বিবেদী এবং সুধাকর চতুর্বেদী।