করোনা আতঙ্কের মাঝেই তীব্র ভূমিকম্পে কেঁপে উঠল উত্তর-পূর্বা ভারত

আজবাংলা    গুয়াহাটি     প্রকৃতির রূদ্র প্রতাপে উত্তর-পূর্বাঞ্চলে ত্রাহি ত্রাহি রব উঠেছে। একে করোনা সংকট, তার মধ্যে বন্যা, এর মধ্যেই সংঘটিত হচ্ছে ঘন ঘন ভূমিকম্পের মতো ঘটনা। আজ রবিবার অসমের রাজধানী গুয়াহাটি সহ প্রতিবেশী মেঘালয়, মণিপুর এবং মিজোরামে মাঝারি তীব্রতার ভূমিকম্প হয়েছে বিকেল ৪:১৫ মিনিটে। ভূমিকম্পটি রিখটার স্কেলে তীব্রতা ছিল ৫.১। আজকের ভূমিকম্পের উত্‍সস্থল মিজোরামের রাজধানী আইজল ছিল বলে জানা গেছে।ন্যাশনাল সেন্টার ফর সিসমোলজি সূত্রে জানা গেছে, ভূমিকম্পের কেন্দ্রস্থল আইজলের ২৫ কিলেমিটার পূর্ব এবং উত্তর-পূর্বে ভূপৃষ্ঠ থেকে প্রায় ৩৫ কিলোমিটার গভীরে (২৫.৬° উত্তর অক্ষাংশ এবং ৯০.৬° পূর্ব) ছিল।ভূমিকম্পের উত্‍সস্থল আইজল হওয়ায় কম্পনের ধাক্কা লেগেছে দক্ষিণ অসমের শিলচর এবং সংলগ্ন এলাকায়। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত কোনও ক্ষয়ক্ষতির খবর পাওয়া যায়নি। এখানে উল্লেখ করা যেতে পারে, এছাড়া গত ২ জুন ভারতীয় সময় সকাল ৭:১৪ মিনিটে ৩.৯ প্রাবল্যের ভূমিকম্প হয়েছিল মণিপুরে। সেদিনের ভূমিকম্পের উত্‍সস্থল ছিল রাজ্যের পূর্ব উখরুল জেলার ভূপৃষ্ঠের ১১ কিলোমিটার গভীরে। এর আগে ২৫ মে রাত ৮টা ১২ মিনিটে ৫.৪ তীব্রতার ভূমিকম্প হয়েছে অসম, মেঘালয় এবং ত্রিপুরায়ও ভূমিকম্প হয়েছে। সেদিনের ভূমিকম্পের উত্‍সস্থল ছিল মণিপুরের চূড়াচাঁদপুর জেলা এবং মায়ানমার সীমান্ত।এর আগে, গত ১৮ জুনও মিজোরামে ভূমিকম্প হয়েছিল। সেদিন সন্ধ্যা ৭ টা ২৯ মিনিটে কম্পনের অভিকেন্দ্র ছিল চম্পাইয়ের দক্ষিণ-পূর্বে ৯৮ কিলোমিটার দূরে। কম্পনের উৎস ছিল ভূপৃষ্ঠের ৮০ কিলোমিটার নীচে। তারে জেরে শিলং-সহ উত্তর-পূর্ব ভারতের অধিকাংশ শহর কেঁপে উঠেছিল। ভাগ্যবশত সেভাবে কোনও ক্ষয়ক্ষতির খবর পাওয়া যায়নি।