কালবৈশাখীর তাণ্ডবে রাজ্যে মৃতের সংখ্যা বেড়ে হল ১৫

number of dead in the state has increased to 15
কালবৈশাখীর তাণ্ডব

আজবাংলা কালবৈশাখীর তাণ্ডবে বিপর্যস্ত রাজ্য। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় প্রবল ঝড় আছড়ে পড়ে কলকাতা সহ দক্ষিণবঙ্গে। ঝড়ের গতি ছিল একশো কিলোমিটারের কাছাকাছি। দিনভর তীব্র গরমের পর সন্ধ্যায় কালো হয়ে আসে শহরের আকাশ। কিছুক্ষণের মধ্যেই শুরু হয় ঝড়ের তাণ্ডব। আলিপুর আবহাওয়া দফতর সূত্রে খবর, সন্ধে ৭টা ৪২-এ কলকাতার ওপর দিয়ে ঘণ্টায় ৮৪ কিলোমিটার বেগে ঝড় বয়ে যায়। ১৩ মিনিট পর ৭টা ৫৫-য় শহরের ওপর দিয়ে বয়ে যায় ঘণ্টায় ৯৮ কিলোমিটার বেগে ঝড়।  সঙ্গে প্রবল বৃষ্টি। ঝড়ের দাপটে লেনিন সরণী, মৌলালি, পোস্তা, বেহালা, বড়বাজার ও সাদার্ন অ্যাভিনিউ ও সল্টলেকের বিভিন্ন জায়গায় একাধিক গাছ ভেঙে পড়ে। বন্ধ হয়ে ‌যায় ‌যান চলাচল। সন্ধের কালবৈশাখীর প্রভাব পড়ে পরিবহণ ব্যবস্থায়। বিপর্যস্ত ট্রাম, ট্রেন, মেট্রো থেকে বিমান চলাচল। ঝড়ের তাণ্ডবে হাওড়া স্টেশনে প্রভাব পড়ে ট্রেন চলাচলে। বিভিন্ন স্টেশনে একাধিক ট্রেন আটকে যাওয়ার পাশাপাশি, ওভার হেড তারে গাছ পড়ে যাওয়ায় হাওড়া-বর্ধমান ও হাওড়া-তারকেশ্বর শাখায় বন্ধ হয়ে যায় ট্রেন চলাচল। চরম দুর্ভোগে পড়েন হাজার হাজার যাত্রী।  ঝড়ের দাপটে হাওড়া স্টেশনের ১৯ ও ২০ নম্বর প্ল্যাটফর্মের ওপরের ফ্লাইওভারের রেলিং-এর একাংশ ভেঙে পড়ে। উত্তরপাড়া ও হিন্দমোটরে মোবাইলের দুটি টাওয়ার উপড়ে রাস্তার ওপর পড়লে বিঘ্নিত হয় যানচলাচল। এদিন চাঁদনিতে অটোর উপরে গাছ পড়ে গেলে এক মহিলা সহ ২ জনের মৃত্যু হয়। বেহালায় গাছ পড়ে মৃত্যু হয় আরও এক জনের। বাড়ি একাংশ ভেঙে পোস্তার কালাকার  স্ট্রিটে এক ‌যুবকের মৃত্যু হয়। এছাড়া হুগলি ও বাঁকুড়ায় বাজ পড়ে ২ জনের মৃত্যু হয়েছে।এরমধ্যে কলকাতায় মৃতের সংখ্যা ৪। হাওড়ায় মারা গিয়েছেন ৬ জন