মোহনবাগান দিবসে টাইম স্কোয়্যারের বিলবোর্ডে উঠল বাগানের ছবি।

মোহনবাগান দিবসে টাইম স্কোয়্যারের বিলবোর্ডে উঠল বাগানের ছবি।
আজবাংলা, ২৯ শে জুলাই, গর্বের দিন মোহনবাগানের ভক্তদের কাছে। ঘড়ির কাঁটায় তখন রাত বারোটা। ঠিক সেই সময়ই নিউ ইয়র্কের টাইম স্কোয়্যারের বিলবোর্ডে ভেসে উঠল মোহনবাগানের ছবি। সেই সুদূর মার্কিন দেশেও বাঙালির প্রাচীন গৌরবের সাথে জড়িত ক্লাবেকে সম্মানিত করা হল। বিলবোর্ডের স্ক্রীনের সামনে ভেসে এলো সেই পালতোলা নৌকা আর সবুজ মেরুন রঙ। মোহনবাগানের ইতিহাসে এক নতুন অধ্যায়ের শুরু করল এই দৃশ্য।এই দিনটি শুধুই মোহনবাগান ভক্তদের আবেগের দিন। সেই অমর শিল্ডজয়ী একাদশকে সসন্মান জানানো্র দিন। মোহনবাগান রত্ন দিয়ে পুরস্কৃত করা হয় কিংবদন্তি ফুটবলারদের। এদিনে মোহনবাগানের ক্লাব নতুনভাবে সেজে ওঠে। ১৯১১ সালের ২৯ শে জুলাই ব্রিটিশ দল ইস্ট ইয়র্কশায়ার ক্লাবের বিরুধে খেলে তাদের হারিয়ে আইএফএ শিল্ড ঘরে নিয়ে তোলার দিন। সেদিন মোহনবাগানের ফুটবলাররা খালি পায়ে ব্রিটিশদের বিরুধে খেলতে নেমেছিল। তাদের এই জয় স্বাধীনতা সংগ্রামের চেয়ে কোনও অংশে কম ছিল না। এ ছিল পরাধীন ভারতবর্ষের ব্রিটিশ শাসকদের হারানো।তবে মোহনবাগানের ক্লাবেরকর্তারা এইবছর করোনার এই ভয়াবহ পরিস্থিতির জন্য তারা ক্লাবের মধ্যে কোনো কিছুর আয়োজন করতে পারবেন না। তবে তারা ইতিহাসের এই স্মরনীয়, আবেগপ্রবণ ও ঐতিহ্যশালী দিনটি ভারচুয়াল মিডিয়ামের দ্বারা উদযাপন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এই গোটা বিষয়টি দেখানো হবে ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে। মোহনবাগানের অফিসিয়াল সোশ্যাল মিডিয়ার পেজে অনুষ্ঠানটির লাইভ হবে। অনুষ্ঠান শুরু সকাল ৯ টায়, শেষ হবে ৭ঃ৩০ নাগাদ। শুরুতে ভিডিওতে বার্তা দেবেন ক্লাবের প্রেসিডেন্ট টুটু বোস। এরপর এই বিশেষ দিনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান হবে। এরপর মোহনবাগানের পুরনো ম্যাচের ফুটেজগুলি দেখানো হবে, এছাড়া আরও বিশেষ বিশেষ অনুষ্ঠান রয়েছে।তবে বিদেশের মাটিতে এমন উদযাপনের দৃশ্য প্রত্যেক মোহনবাগানের ভক্তকে রোমাঞ্চিত করবে।