বামপন্থী সেলিমের ছেলের বিয়ের কার্ডে লেখা ‘ইনশা আল্লাহ। নেটিজেনদের তোপ ধর্মনিরপেক্ষ কেবল হিন্দুরা

সেলিমের ছেলের বিয়ের কার্ডে লেখা ‘ইনশা আল্লাহ।
সেলিমের ছেলের বিয়ের কার্ডে লেখা ‘ইনশা আল্লাহ।

আজবাংলা পৃথিবীর কম বেশি সব মানুষই ধর্মে আস্থা রাখেন। ঈশ্বরে বিশ্বাস করেন। তবে বামপন্থীরা ঈশ্বর মানেননা। এমনকি একসময়ে বাংলায় ক্ষমতার শীর্ষে থাকা বাম নেতারা মন্দির, মসজিদে অবধি যেতেন না। তার মধ্যে মহম্মদ সেলিম যে ছিলেন সেই ধারণা ভিন্ন নয়। চন্দ্রযান অভিযানের পর ইসরো প্রধান কে শিবনের একটি মন্দিরযাত্রার ছবি নিয়ে হইচই পড়ে গিয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। বৈজ্ঞানিক কীভাবে ঈশ্বর বিশ্বাসী হতে পারেন, তা নিয়ে খোঁচা দিচ্ছেন বামপন্থী রা।তবে এবার সিপিএমের প্রাক্তন সাংসদ মহম্মদ সেলিম যা করলেন তা দেখে চক্ষু চড়কগাছ সকল কমরেডেরই! হ্যাঁ, ঠিক তাই। কারণ সেলিমের ছেলের বিয়ের কার্ডেও লেখা হয়েছে ‘ইনসা আল্লাহ’! নেটিজেনরাই আমন্ত্রণপত্রটি ভাইরাল করেছেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। তাঁদের দাবি, এটা সিপিএমের দ্বিচারিতা। হিন্দুদের বেলায় ধর্ম নেই। অথচ সেলিম নিজের ধর্ম সম্পর্কে সচেতন। কেউ কেউ তো সিপিএম-কে হিন্দু বিরোধী বলেও দেগে দিয়েছেন। এর আগে এনআরএস কাণ্ড নিয়ে ফেসবুকে পোস্টে নিজেকে ‘মুসলিম’ বলে ঘোষণা করেছিলেন সিপিএমের পলিটব্যুরো সদস্য মহম্মদ সেলিমের ছেলে রাসেল আজিজ। বিশেষ করে, বিজেপি এবং তৃণমূল দু’দলই রাজ্যে সাম্প্রদায়িক মেরুকরণের রাজনীতি করছে বলে সিপিএম যখন বারবার অভিযোগ তুলছে ঠিক তখন বামপন্থী সেলিমের ছেলের বিয়ের কার্ডে লেখা ‘ইনশা আল্লাহ। গোটা বিতর্ক সরাসরি খণ্ডন করেননি মহম্মদ সেলিম।একটি সংবাদমাধ্যম কে সিপিএমের প্রাক্তন সাংসদ ফোনে জানান, যাঁর বিয়ে বিষয়টি তাঁর। সমস্তটা আমি করেছি তা নয়। ছেলেকেও উত্তর দিতে নিষেধ করেছি। মূল সমস্যা থেকে দৃষ্টি ঘোরানোর চেষ্টা। ছ্যাবলামির উত্তর দেব না। পরে ঐ সংবাদমাধ্যম কে তিনি ইসলামের শায়েরিতে বার্তা পাঠান, তাতে লেখা– জাহিদ-এ-তঙ্গ-নজর নজর নে মুজে কাফির জানা, ঔর কাফির ইয়ে সমঝতে হ্যায় মুসলমান হুঁ ম্যাঁয়। যার মর্মার্থ, ‘অসহিষ্ণুরা আমায় কাফিরের (বিধর্মী) চোখে দেখে। আর কাফিররা (বিধর্মী) আমায় মুসলমান ভাবে।’ তবেকি পরিবতর্নের হাওয়ায় কি তা হলে গা ভাসিয়েছে সিপিএম? নাকি হিন্দু দের সাথে দ্বিচারিতা করছে সিপিএম। প্রশ্ন রাজনৈতিক মহলের।     

এমন সমস্ত আপডেট পেতে লাইক দিন!