আপনার ভাগ্যকে একটি মাত্র ফুলই পৌঁছে দিতে পারে তুঙ্গে

আজবাংলা   জ্যোতিষশাস্ত্র মতে এমন কিছু বস্তু রয়েছে যেগুলির মধ্যে অসাধারণ শক্তি লুকনো থাকে। যোগুলি সম্পর্কে হয়তো আমরা অনেকেই জানি না। সে রকম একটি জিনিস হল নাগকেশর ফুল। এই একটি মাত্র ফুলের ব্যবহার আপনার জীবনে নানা সমস্যার সমাধান করতে পারে। এই ফুল কিছু সহজ উপায়ে আপনার জীবনকে সমস্যা মুক্ত করে ভরিয়ে তুলতে পারে অফুরন্ত আনন্দে। নাগকেশর এক প্রকার সপুষ্পক বৃক্ষ, এর বৈজ্ঞানিক নাম Ochrocarpos longifolius যা Calophyllaceae পরিবারভুক্ত। ভারতের পশ্চিমঘাটে এটি পাওয়া যায়। এটি এক ধরনের চিরসবুজ বৃক্ষ। বাংলাদেশের উত্তরাঞ্চল ও চট্টগ্রাম অঞ্চলে এই গাছ সবচেয়ে বেশি দেখা যায়। এছাড়া ভারতের পশ্চিমবঙ্গ, উড়িষ্যা, পশ্চিমঘাট ও দক্ষিণ ভারতেও এটি প্রচুর জন্মে। উল্লেখ্য, নাগেশ্বর, নাগকেশর ও নাগলিঙ্গম তিনটি ভিন্ন প্রজাতি।নাগকেশর গাছ প্রায় ৩০ মিটার লম্বা হয়। এদের ডাল বেশ নরম এবং প্রস্থচ্ছেদ গোলাকার। এর বাকল ১ সেমি পুরু এবং লালচে। এর কাঠের রঙও হালকা লাল এবং বেশ শক্ত। এই গাছ পত্রবহুল। পাতা গাঢ় সবুজ। পত্রফলক ১২-২২ সেমি লম্বা এবং ৫-৭ সেমি চওড়া। পাতা নিচের দিকে নুয়ে থাকে। পত্রবৃন্ত .৫ সেমি লম্বা হয়। কি ভাবে ব্যবহার করবেন নাগকেশর ফুল আর্থিক সমস্যা কাটিয়ে ওঠার জন্য একটি নাগকেশর ফুল এক পূর্ণিমা থেকে পরবর্তী পূর্ণিমা পর্যন্ত একটানা শিবলিঙ্গে অর্পণ করুন এবং পুজোর শেষ দিন সেই ফুলগুলিকে টাকা রাখার জায়গায় রেখে দিন। এর ফলে আর্থিক উন্নতি হবে চোখে পড়ার মতো।প্রতি দিনের পুজোর সঙ্গে ঠাকুরের আসনে একটি নাগকেশর ফুলেরও পুজো করুন পর পর সাত দিন। তার পর সেই ফুলটি সাদা কাপড়ে মুড়ে ব্যবসার ক্যাশবাক্স বা অফিসের ডেস্কে রেখে দিন। এর ফলে আয় বৃদ্ধি পাবে। এ ছাড়া ব্যবসা বা অফিস সংক্রান্ত সমস্যা থাকলে তা-ও অনেকটা মিটে যাবে। যে কোনও শুভ তিথিতে একটি রুপোর মাদুলিতে একটি নাগকেশর ফুল ও মধু একসঙ্গে রেখে গলায় পরুন অথবা টাকা রাখার জায়গায় রেখে দিন। এর ফলে দেখা যাবে হঠাৎ করেই আর্থিক উন্নতি হতে শুরু করেছে। তবে এই কাজটি শুক্লপক্ষে করতে হবে। জীবনে নানা সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে একটি নাগকেশর ফুল, সামান্য চাল, একটি তামার টুকরো, কাঁচা হলুদ ও একটি গোটা সুপুরি একসঙ্গে বেঁধে ঠাকুরের স্থানে রেখে তা পুজো করুন। জীবন থেকে দ্রুত সমস্যা সরে যাবে।