মধ্যমগ্রামে তৃণমূল কার্যালয়ে ঢুকে শুটআউটকাণ্ডে পুলিসের হাতে উঠে এসেছে চাঞ্চল্যকর তথ্য।

আশঙ্কাজনক অবস্থা একটি বেসরকারি হাসপাতালে
আশঙ্কাজনক অবস্থা একটি বেসরকারি হাসপাতালে

আজবাংলা উত্তর ২৪ পরগণা রাতে মধ্যমগ্রামে তৃণমূল কার্যালয়ে ঢুকে বোমা ও গুলি চালাল দুষ্কৃতিরা। গুলিতে আহত হয়েছেন তৃণমূল যুব নেতা বিনোদ সিং সহ দুই জন। আশঙ্কাজনক অবস্থা তাঁদের যশোর রোডের একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। চার রাস্তার মোড়ে একেবারে ঘিঞ্জি এলাকায় তৃণমূলের দলীয় কার্যালয়। প্রতিদিনের মতো সোমবার সন্ধ্যাতেও ঘনিষ্ঠ কয়েকজনের সঙ্গে সেখানে বসে কথা বলছিলেন বিনোদ সিংহ ওরফে রিঙ্কু। সেই সময় চার রাস্তার বিভিন্ন দিক থেকে আততায়ীরা আসে। মোট ৬ জন ছিল। তাদের মধ্যে দুজনের মাথায় হেলমেট ছিল। দূরে কোথাও বাইক দাঁড় করিয়েই এলাকায় ঢুকেছিল তারা। মনে করা হচ্ছে দুটি বাইকে করে এসেছিল আততায়ীরা। প্রাণ বাঁচাতে কার্যালয়ের ভিতরেই লুকিয়ে থাকেন রিঙ্কু। এক দুষ্কৃতী গুলি চালাতে চালাতে ভিতরে ঢোকে। তখন বাইরে দাঁড়িয়ে পাহারা দিচ্ছিল আরও একজন। রিঙ্কুকে লক্ষ্য করে পরপর দুটি গুলি করা হয়। প্রায় তিন মিনিট পর ভেতরে থাকা দুষ্কৃতী বেরিয়ে আসে। অস্ত্র উঁচিয়েই এলাকা ছেড়ে বেরিয়ে যায় তারা। সেই সময় রিঙ্কুর এক দেহরক্ষী ওস্তাদ তাদের পিছু নেয়। কিন্তু হাত ছাড়িয়ে পালিয়ে যায় ওই দুষ্কৃতী।প্রত্যক্ষদর্শীদের বয়ান অনুযায়ী, রাত ৮.২০ নাগাদ মুড়ি তেলেভাজা কিনে দলীয় কার্যালয়ের ভিতর ঢোকেন রিঙ্কু। তখনই আচমকা বোমাবাজি শুরু  হয়। কার্যালয়ের বাইরে থাকা লোকজন ভয়ে পালিয়ে যায়। বোমার স্প্লিন্টারে আহত হন রিঙ্কু ঘনিষ্ঠ দীপক। তিনি মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। জ্যোতিপ্রিয় মল্লিককের অভিযোগ রাজনৈতিক কারণেই এই হামলা হয়েছে। হামলার পিছনে কারা রয়েছে তার খোঁজ চলছে। প্রাথমিক তদন্তের পর পুলিসের অনুমান, আততায়ীরা কেউই এলাকার নয়। ভাড়াটে গুণ্ডা দিয়েই অপারেশন করা হয়েছে। এক্ষেত্রে মধ্যমগ্রামের চার রাস্তার মোড়ের ওই এলাকা খুব ভালোভাবেই রেইকি করে নিয়েছিল আততায়ীরা। রেইকি করার পরই হামলা করা হয়। আততায়ীদের কারোর মুখই বাধা ছিল না। তাতে পুলিস নিশ্চিত, প্রত্যেককেই বাইরে থেকে ভাড়া করে নিয়ে আসা হয়েছিল। কারণ পরিচিত হলে, বা ধরা পড়ে যাওয়ার ভয় থাকলে তারা মুখে কাপড় বেঁধে নিত। এলাকা সম্পর্কেও ভালো জ্ঞান ছিল আততায়ীদের। তা না হলে অপারেশনের পর মধ্যমগ্রামের চার রাস্তায় ওত ঘিঞ্জি এলাকা দিয়ে তাদের পালিয়ে যাওয়া সম্ভব ছিল না। মধ্যমগ্রাম শুটআউটকাণ্ডে ইতিমধ্যেই ৫ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিস। এলাকায় তৃণমূল কর্মী বলেই পরিচিত রাখাল নন্দীর দিকে নজর রাখছে পুলিস। মনে করা হচ্ছে, ভাড়াটে গুণ্ডাদের কাজে লাগিয়েই রিঙ্কুকে খুনের ছক কষেছিল রাখাল নন্দী।

এমন সমস্ত আপডেট পেতে লাইক দিন!