দেখে নিন ত্বকের যত্নে বেকিং সোডার ভূমিকা

দেখে নিন ত্বকের যত্নে বেকিং সোডার ভূমিকা

আজবাংলা-  ১. শুকনা শ্যাম্পু হিসেবে-  কোথাও যাচ্ছেন স্নানের সময় পাচ্ছেন না, কিন্তু মাথায় শ্যাম্পু করা নেই বলে চুল তেলতেলে হয়ে আছে। তখনই সমাধান দেবে বেকিং সোডা। শুকনা শ্যাম্পুর মতো এটি ব্যবহার করতে পারেন, যা মাথার ত্বকে জমা হওয় তেল শুষে নেবে। বেকিং সোডা চুলের ভলিউম দিতেও ব্যবহৃত হয়।

ব্যবহার প্রণালি- বেকিং সোডার কৌটাটি নিন, এরপর চুলের গোড়ায় ছিটিয়ে দিন। এরপর স্ক্যাল্পে ঘষুন। তৈলাক্ত ভাব চলে যাবে।

 

২. ফেস স্ক্রাব-  ফেস স্ক্রাব হিসেবে বেকিং সোডা দারুণ কার্যকর। মৃত ত্বক ও মুখের ময়লা অপসারণে ব্যবহৃত হয় এ উপাদানটি। এর ব্যবহারে মুখ উজ্জ্বল, ঝলমলে ও সজীব রাখা যায়।

ব্যবহারপ্রণালি-  এক চা চামচ বেকিং সোডার সঙ্গে ২ চা-চামচ কমলার রস মিশিয়ে ঘন পেস্ট তৈরি করুন। মিশ্রণটি পুরো মুখ ও ঘাড়ে লাগাতে পারেন। ১৫ মিনিট পরে ঠান্ডা পানিতে ধুয়ে ফেলুন।

৩. দাঁতের উজ্জ্বলতায়-  আপনার যদি হলুদ দাঁতের সমস্যা হয়, তবে বেকিং সোডা ব্যবহার করতে পারেন। দাঁত সাদা করার জন্য এটি হতে পারে ভালো সমাধান। এ ছাড়া দাঁতের যেকোনো দাগ দূর করবে বেকিং সোডা।

ব্যবহারপ্রণালি-  আধা চা চামচ বেকিং সোডার সঙ্গে কয়েক ফোঁটা পিপারমিন্ট তেল এবং এক চা চামচ নারকেল তেল যুক্ত করুন। প্রতিদিন সকালে মিশ্রণটি দিয়ে ব্রাশ করুন। দাঁতের উজ্জ্বলতা বেড়ে যাবে।

৪. ঘামের দুর্গন্ধ দূর করবে-  গরমে প্রচুর ঘাম হয়। মেয়েদের ক্ষেত্রে সমস্যাটি বেশি। ঘামে এই দুর্গন্ধ থেকে নিমেষেই রেহাই দেবে বেকিং সোডা। এতে অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল রয়েছে, যা ঘামের ব্যাকটেরিয়া অপসারণে সহায়তা করে।

ব্যবহারপ্রণালি : এক চামচ বেকিং সোডার সঙ্গে এক চামচ লেবুর রস মিশিয়ে ঘামযুক্ত স্থানে লাগাতে পারেন। ১৫ মিনিট পর স্নান করুন। ঘামও কমে যাবে, গন্ধও চলে যাবে।

৫. মেকআপ ব্রাশ পরিষ্কার-  ত্বকে অবাঞ্ছিত সমস্যা এড়াতে মেকআপ ব্রাশ পরিষ্কার করা খুব জরুরি। মেকআপ ব্রাশগুলো পরিষ্কার না করলে মুখে ব্রণ ও ফুসকুড়ি হতে পারে। ব্রাশ ক্লিনার না থাকলে আপনি বেকিং সোডা দিয়ে পরিষ্কার করতে পারেন।

ব্যবহারপ্রণালি-  ২ চামচ বেকিং সোডা ২ কাপ হালকা গরম জ্বলে মিশিয়ে নিন। এবার এতে ব্রাশগুলো ডুবিয়ে দিন। মিনিটখানেক পর নরমাল জ্বলে ধুয়ে ফেলুন।