বাড়তি পণের দাবিতে গৃহবধুর ওপর নির্মম নির্যাতন। ঘটনায় অভিযুক্ত স্বামী সহ শশুরবাড়ির লোকেরা।

Ruthless torture on the housewife
আজবাংলা
 Ruthless torture on the housewife
আজবাংলা

মালদা : বিবাহের পর বাড়তি পণের দাবিতে গৃহবধুর ওপর নির্মম নির্যাতন।ঘটনায় অভিযুক্ত স্বামী সহ শশুরবাড়ির লোকেরা।ছয় দিন ধরে বধূকে বাড়িতে তালা মেরে চলছিল মারধর,এমনকি বন্ধ রাখা হয়েছিলো খাবার বলে অভিযোগ। ঘটনাটি ঘটেছে মালদার ইংরেজবাজার থানার মহারাজপুর গ্রামে।ঘটনায় অভিযুক্ত স্বামী সহ শশুরবাড়ির লোকেদের বিরুদ্ধে ইংরেজবাজার মহিলা থানায় অভিযোগ দায়ের করেছে নির্যাতিতা বধূর পরিবার। জানাগেছে,নির্যাতিতা বধূর নাম আসমিরা বিবি(২৫)।পরিবার সূত্রে জানাগেছে, প্রায় চার বছর আগে পরিবারের সম্বন্ধ করে ইংরেজবাজার থানার মহারাজপুর গ্রামে বাসিন্দা পেশায় লরি চালক আব্দুল ওয়াহাব সাথে বিবাহ হয়।বর্তমানে তাদের এক কন্যা ও এক পুত্র সন্তানও রয়েছে।বিবাহে পন হিসেবে বাড়ির ব্যবহারের আসবাপত্র সহ একটি মোটরসাইকেল দেন।তবে মাস খানেক শুরু হয় গন্ডগোল।জমি কেনার নাম কথা বলে তিন লক্ষ টাকার দাবি করে স্বামী আব্দুল ওয়াহাব।স্ত্রী আসামিরা বিবিকে বাবার কাছ থেকে আনতে বলে স্বামী।কিন্তু বধূর বাবা আতিউল শেখের পক্ষে এতো টাকা দেওয়া সম্ভব নয় বলে জানায়।তারপরই স্বামী বধূকে মারধর করে বাবার বাড়ি পাঠিয়ে দেন। বধূর বাবা আতিউল শেখ জানান, জামাই সাতদিন আগে মেয়েকে বাড়ি থেকে নিয়ে আসেন।তারপরই শুরু হয় মেয়ের ওপর অত্যাচার।ঘরে বন্ধ করে মেয়েকে মারধর করতে থাকে স্বামী সহ শশুরবাড়ির লোকজন।এমনকি ছয়দিন ধরে খাবার না দিয়ে বন্ধ করে রাখা হয়।প্রতিবেশীদের মারফৎ খবর পেয়ে মেয়েকে উদ্ধার করে হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করা হয়। ঘটনায় সোমবার রাতে ইংরেজবাজার মহিলা থানায় স্বামী আব্দুল ওয়াহাব,শশুর এনামুল হক,শাশুড়ি আরেফা বিবি,যা সাবিনা বিবির বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।ঘটনার তদন্ত শুরু করলেও এখনো অধরা অভিযুক্ত স্বামী সহ শশুর শাশুড়ি।