মৌতড়ের বড় কালীপুজোতে শ্যামা মায়ের আরাধনায় এবারও রেকর্ড সংখ্যক ভক্তসমাবেস।

Shyamaya mother in Kaliipujo of Mouthar is still awaited.
কালীপুজোতে শ্যামা মায়ের আরাধনায় এবারও রেকর্ড সংখ্যক ভক্তসমাবেস।

আজবাংলা পুরুলিয়াঃ পুরুলিয়া জেলার প্রথম সারির তথা রাজ্যের অন্যতম পুরুলিয়া জেলার রঘুনাথপুর ২ নং ব্লকের মৌতড়ের বড় কালীমন্দিরে প্রতি বছরের ন্যায় এই বছরও রেকর্ড সংখ্যক ভক্তসমাবেশে মেলা প্রাঙ্গণ গমগম হয়ে উঠল।পুরুলিয়া জেলা সহ রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তের মানুষেরা এখন থেকেই মেলা প্রাঙ্গণে ভিড় জমাতে শুরু করেছে চরমে।কারন এখানকার পুজোর মূল বৈশিষ্ট্য হল ‘পশুবলি’।বংশ পরম্পরায় চলে আসা প্রতিবছর আজকের দিনে হাজার দু’য়েক ছাগ,ভেড়া ও শতাধিক মোষ বলি হয় এখানে। রাত থেকে বলিদান শুরু হয়ে পরের দিন দুপুর পর্যন্ত একিরকম ভাবে চলে বলিদান।তবে ঠিক কতবছর পূর্বে এই পুজো সূচনা হয়েছিল তার সঠিক কোনও হিসেব নেই উদ্যোক্তাদের কাছে।যদিও এলাকার বাসিন্দা ও মৌতড় গ্রামের পুজো নিয়ে লেখা কিছু বইতে উল্লেখ তথ্য অনুযায়ী আনুমানিক কয়েক শতাব্দী আগে গ্রামের বাসিন্দা বিশ্বনাথ ভট্টাচার্যের জামাই সাধক সোভারাম ব্যানার্জি এই পুজোর সূচনা করেন বলে জানা যায়। পুরুলিয়ার রঘুনাথপুর ২ নং ব্লকের শতাব্দী প্রাচীন মৌতড়ের এই বহু জাগ্রত কালীমন্দির সাজিয়ে তোলা হয়েছে কালীঘাটের মন্দিরের আদলে।পুজোর প্রায় এক সপ্তাহ আগেই এই পুজোকে ঘিরে মৌতড় এলাকা জুড়ে শুরু হয়েছিল সাজো সাজো উল্লাস।আর আজ পুজোর দিনে মুলত মায়ের নিমিত্তে বলিদান দেখতেই জেলা সহ রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আগত দর্শনার্থীদের উচ্ছাসে গমগমিয়ে উঠছে মেলা প্রাঙ্গণ। স্থানীয় প্রশাসন এবং মৌতড় ষোলআনা উৎসব কমিটি ও গ্রামের তরুণ সংঘের মিলিত উদ্যেগে নতুন ভাবে কালীঘাট মন্দিরের আদলে এই মন্দির তৈরী হওয়ায় মৌতড় গ্রামের এই পুজো এবার এক অন্য মাত্রার রুপ পেয়েছে।অন্যদিকে মন্দিরের এই অস্বাভাবিক ভিড়ে যাতে কোনও রকম অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে তার জন্যও স্থানীয় রঘুনাথপুর থানার পুলিশ সদা সজাগ রয়েছে।