বরফের চাদরে ঢেকেছে সিকিমের লাচুং ও লাচেন, বন্ধ যান চলাচল

আজবাংলা  সিকিম     পর্যটকদের মধ্যে খুবই জনপ্রিয় উত্তর সিকিমের শহর ।ভ্রমণপ্রেমীদের কাছে বিশ্বের যে কয়টা স্থান ভালো লাগার কাতারে আছে, তার মধ্যে একটি সিকিম। বছরের বাকি সময় চোখজুড়োনো সবুজ উপত্যকা, তার বুক চিরে বয়ে যাওয়া নীল নদী, তুষারমুকুট মাথায় পড়া পাহাড়শ্রেণি দারুণ ভাবে আকর্ষণ করে ভ্রমণার্থীকে। গতকাল থেকেই উত্তর পূর্ব সিকিমের বিস্তীর্ণ এলাকায় ভারী মাত্রায় স্নওফল শুরু হয়েছে। যার ফলে বেশ কিছু এলাকায় যান চলাচল বন্ধ ছিল। ঠিক তেমনই এদিন একি ভাবে তুষারের চাদরে ঢেকে রয়েছে উত্তর পূর্ব সিকিমের লাচুং ও লাচেন সহ বিস্তীর্ণ এলাকা। প্রায় ১২ থেকে ১৫ ইঞ্চি বরফের চাদরে ঢেকে রয়েছে শহর।১০ বছর পর গতবার ডিসেম্বরের শেষে তুষারপাত হয়েছিল। এ বার জানুয়ারির শুরুতে দার্জিলিঙের টাইগার হিলের রাস্তায় ইতি উতি বরফ পড়ে থাকতে দেখা গেল। হাতের নাগালে বরফ পেয়ে বেজায় খুশি পর্যটকেরা। গাড়ি থামিয়ে বরফ নিয়ে ছবি তুলতে ব্যস্ত হয়ে  পড়েন অনেকেই। তবে পাহাড়ে কনকনে ঠান্ডায় শীতের আমেজ নিচ্ছেন পর্যটকেরা। এ দিন কলকাতার সর্ব নিম্ন তাপমাত্রা এবং সর্বোচ্চ তাপমাত্রা অনেকটাই কাছাকাছি চলে এসেছে। ফলে সারা দিনই ঠান্ডা মালুম হয়েছে।অন্যদিকে ভরা পর্যটন মরসুমে কোন রকম ঝুকি নিতে রাজি নন সিকিম সরকার। তাই গাড়ির পারমিপ বন্ধ করে দিয়েছে সিকিম সরকার। যদিও এই রকম তুষারপাত দেখে তাদের উচ্ছাসের অন্ত নেই। অপরদিকে শহর শিলিগুড়িতেও জাকিয়েশীত।