গ্যাস্ট্রিক আলসার রোগের লক্ষণ ও বাঁচার কিছু উপায়

আজবাংলা গ্যাস্ট্রিক বা এসিডিটি নাই এমন লোক খুব কমই পাওয়া যাবে। নিয়মিত ওষুধ তো খানই তবুও অফিস-আদালতে কিংবা কাজকর্মে যাওয়ার সময় সঙ্গে এসিডিটির ওষুধও নিয়ে যান। দোকানে যাবেন এক কোম্পানিরই কয়েক ধরনের গ্যাস্টিকের ওষুধ পাবেন। ওষুধের উপর নির্ভরশীল না হয়ে খাবারের দিকে মনযোগী হউন। যে খাবার গ্যাস্ট্রিক দূর করতে সাহায্য করে সেগুলো খাবারের তালিকায় রাখুন। পেটে একধরনের জীবাণু সংক্রমণ এর জন্য দায়ী হতে পারে।

হেলিকোব্যাকটার পাইলোরি নামের এই জীবাণু পাকস্থলী এবং পাকস্থলীর পূর্ববর্তী অংশ ডিওডেনামে বাসা বাঁধে, দীর্ঘমেয়াদি প্রদাহ সৃষ্টি করে, যাকে বলে গ্যাস্ট্রাইটিস। কখনো কখনো পাকস্থলীতে ক্ষত বা আলসার সৃষ্টি করে। পেপটিক আলসার ও গ্যাস্ট্রিকের সমস্যার জন্য এই জীবাণুর একটি বিশেষ ভূমিকা আছে। ধারণা করা হয়, পৃথিবীর জনসংখ্যার অর্ধেকই এই জীবাণু দ্বারা আক্রান্ত। ইউনিভার্সিটি অব শিকাগোর গ্যাস্ট্রোএন্টারোলজি স্পেশালিস্ট নীল সেনগুপ্তের মতে, ‘আলসারের সর্বাধিক কমন লক্ষণসমূহের একটি হচ্ছে পেটের উপরিভাগে তীব্র ব্যথা।’ তিনি যোগ করেন, ‘ডাইজেস্টিভ ট্র্যাকের উপরিভাগের যেকোনো জায়গায় আলসার ডেভেলপ হতে পারে, কিন্তু আমরা প্রায়ই ভাবি যে এটি পাকস্থলী বা ক্ষুদ্রান্ত্রে হয়ে থাকে, যেখানে আমরা ব্যথা অনুভব করি।’ আলসার জনিত ব্যথা সাধারণত ব্রেস্টবোন এবং বেলি বাটনের মধ্যবর্তী স্থানে হয়ে থাকে। আলসারের কারণে জ্বালাপোড়া, তীব্র ব্যথা ও হালকা ব্যথা অনুভূত হতে পারে। ব্যথার অনুভব প্রথমদিকে হালকা ও মাঝারি হতে পারে, কিন্তু প্রায়ক্ষেত্রে আলসার ডেভেলপের সঙ্গে সঙ্গে তা অধিক মারাত্মক । ডা. সেনগুপ্ত বলেন, ‘গ্যাস্ট্রোইন্টেস্টাইনাল ট্র্যাক থেকে রক্ত আসা অনেক রকম সমস্যার ইঙ্গিত দিতে পারে। এ রক্তপাত পেটের উপরিভাগের ব্যথার সঙ্গে সম্বন্ধযুক্ত হলে অত্যন্ত সন্দেহজনক ব্যাপার হচ্ছে, এটি আলসারের লক্ষণ হতে পারে।’ অনেক রোগী বমি করার সময় অথবা বাথরুম ব্যবহারের সময় রক্ত লক্ষ্য করে থাকে, কালো মল দেখে তারা বুঝতে পারে যে মলের সঙ্গে রক্ত আসছে। যদি জিআই ট্র্যাক থেকে রক্তপাত হয় এবং সেই সঙ্গে বমি ভাব ও পাকস্থলী বা বুকে ব্যথা হয়, আপনার ডাক্তার আলসার আছে কিনা জানতে ব্লাড টেস্ট বা আপার এন্ডোস্কপি (যেখানে পাকস্থলী পর্যবেক্ষণ করার জন্য ক্যামেরা ব্যবহার করা হয়) করেন। হেমোরয়েড বা কোলন ক্যানসারের কারণেও মলের সঙ্গে রক্ত বের হতে পারে। তাই প্রকৃত কারণ নির্ণয় করতে ডাক্তার দেখানোই ভালো। ওমিপ্রাজল-জাতীয় গ্যাস্ট্রিকের ওষুধ বছরের পর বছর খাওয়া বিপজ্জনক। এতে পাকস্থলীর পিএইচ পরিবর্তিত হয়ে যায়, ক্যানসারের ঝুঁকি বাড়ে, রক্তশূন্যতা দেখা দিতে পারে। যদি গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা লেগেই থাকে, তবে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

খাওয়া-দাওয়ায় অনিয়ম, স্বাস্থ্যকর খাবার না খাওয়া, শারীরিক পরিশ্রম না করা, জল কম খাওয়ার ফলে পেটে গ্যাস তৈরি হতে পারে। প্রথমদিকেই সচেতন না হলে পরবর্তীতে আলসার হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে। এবার জেনে নেই কোন কোন খাবার দ্রুত এসিডিটি কমায়-

আদা

অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি উপাদান সমৃদ্ধ খাবার হলো আদা। এই উপাদান গ্যাসের সমস্যা, বুক জ্বালাপোড়া, হজমে সমস্যা এবং অ্যাসিডিটির সমস্যা দ্রুত সমাধানে সক্ষম। পেট ফাঁপা এবং পেটে গ্যাস হলে কাঁচা আদা কুচি করে লবণ দিয়ে খান, দেখবেন গ্যাসের সমস্যার দ্রুত সমাধান পাবেন।

দই

দইয়ে ল্যাকটোব্যাকিলাস, অ্যাসিডোফিলাস ও বিফিডাসের মতো নানা ধরনের উপকারী ব্যাকটেরিয়া থাকে। এসব উপকারী ব্যাকটেরিয়া দ্রুত খাবার হজমে সাহায্য করে সেই সঙ্গে খারাপ ব্যাকটেরিয়া ধ্বংস করে। তাই দই খেলে হজম ভালো হয়, গ্যাস কমে। এজন্য খাবারের পর দই খাওয়া বেশ কার্যকর। বিশেষ করে টক দই।

শসা

পেট ঠাণ্ডা রাখতে বেশ কার্যকরী খাবার শসা। কাঁচা শসা হজমেও সাহায্য করে। এতে রয়েছে ফ্লেভানয়েড এবং অ্যান্টি ইনফ্লেমেটরি উপাদান যা পেটে গ্যাসের উদ্রেক কমায়। এছাড়া এতে আছে প্রচুর সিলিকা ও ভিটামিন-সি। যা দেহের ওজন কমাতে আদর্শ টনিক হিসেবে কাজ করে। নিয়মিত শসা খেলে দীর্ঘমেয়াদি কোষ্ঠকাঠিন্যও দূর হয়।

পেঁপে

পেঁপেতে রয়েছে পেপেইন নামক এনজাইম যা হজমশক্তি বাড়ায়। তাই নিয়মিত পেঁপে খাওয়ার অভ্যাস করলে গ্যাসের সমস্যা কম হবে। পেঁপে কাঁচা-পাকা দু’অবস্থায় খেতে পারেন। সবটাতেই উপকার পাবেন।

আনারস

আনারসে রয়েছে ৮৫ শতাংশ জল এবং ব্রোমেলিন নামক হজমে সাহায্যকারী প্রাকৃতিক এনজাইম যা অত্যন্ত কার্যকরী একটি পাচক রস। এটি পরিপাকতন্ত্র পরিষ্কার রাখে। তাছাড়া আনারস ত্বকের জন্যও উপকারী।

হলুদ

হজম সংক্রান্ত সব ধরনের সমস্যা সমাধানে হলুদ দারুণ কার্যকর। এটি চর্বিজাতীয় খাবার হজমে ভূমিকা রাখে। তাছাড়া হলুদে প্রদাহনাশক উপাদান থাকে, যা প্রদাহ কমায়।

কলা

যারা বেশি করে লবণ খান, তাদের গ্যাস ও হজমে সমস্যা হতে পারে। কলায় যে পটাশিয়াম আছে তা শরীরের সোডিয়াম ও পটাশিয়ামের ভারসাম্য বজায় রাখে। কলা হজমেও সাহায্য করে। দেহ থেকে দূষিত পদার্থ দূর করে দেয়।

জল

জলের বহু গুণ। প্রতিদিন সকালে খালি পেটে দুই গ্লাস করে জল পান করবেন, দেখবেন সারাদিন আর গ্যাস্ট্রিকের যন্ত্রণা সইতে হবেনা। কারণ জল হজম শক্তি বাড়াতে বেশ কার্যকরী। তাছাড়া জল পরিপাকতন্ত্র পরিষ্কার রাখতেও কাজ করে।