শারীরিক বাধাকে অতিক্রান্ত করেও বাস্তবের সাথে লড়াই করা দের নিয়ে আজ বিশেষ প্রতিবেদন

মলয় দে আজবাংলা শান্তিপুর হিন্দু পৌরাণিক মতে বিশ্বকর্মা ছিলেন দেবশিল্পী,বিষ্ণু পুরাণ মতে প্রভাসের ঔরসে বৃহস্পতির ভগিনীর গর্ভে বিশ্বকর্মার জন্ম হয়।বেদে পৃথিবীর সৃষ্টিকর্তাকে বিশ্বকর্মা বলা হয়েছে, বিশ্বকর্মা মূলত সৃষ্টি শক্তির রূপক নাম, মহাভারতের মতে ইনি শিল্পের শ্রেষ্ঠ কর্তা সহস্য শিল্পের আবিষ্কারক, পুরাণের প্রণাম মন্ত্রে বিশ্বকর্মাকে মহাবীর বলে বর্ণনা করা হয়েছে।তাই শারীরিক বাধাকে অতিক্রান্ত করেও চলার পথে প্রতিদিন নিঃশব্দে কঠিন বাস্তবের সাথে লড়াই করা দের নিয়ে আজ বিশেষ প্রতিবেদন….. সহদেব কর্মকার শান্তিপুর ব্লকের গোবিন্দপুর নিবাসী ৮০% অস্থি সংক্রান্ত প্রতিবন্ধকতা সত্বেও কুড়ি বছর থেকে নিয়মিত প্রতিদিন গ্যাস ঝালাই, সাইকেল ভ্যান রিক্সা সারানোর কাজ করে আসছেন। বাথানগাছি গ্রামের কৃষ্ণধন সরকার ১০০% দৃষ্টিহীনতা নিয়েও আজ দশ বছর থেকে প্রতিদিন সাইকেল রিক্সা, ভ্যান, এমনকি মোটরসাইকেল সারানোর ছোটখাটো কাজ করে চলেছেন ষাটোর্ধ্ব বৃদ্ধ। সুজন দত্ত একটি পায়ে তাঁতের শাড়ি বুনে সংসার চালিয়েও সকল প্রতিবন্ধীর সেবায় নিজেকে নিয়োজিত করেছেন। পেশায় টেকার স্টাটার বিশ্বজিৎ বিশ্বাসের একটি দুর্ঘটনায় ডানহাত টি বাদ গেলেও বাঁ হাত দিয়ে অসাধারণ ছবি এঁকে অসাধারণ শিল্পকর্ম তার রুজি রোজগারের প্রধান পথ।সংস্কৃতে এমএ পাঠরতা পায়েল শিকদার মাছধরা জাল বুনে নিজের পড়াশোনার খরচ যোগান। এইরকমই শতপ্রতিভারুপী শারীরিক বাধাকে অতিক্রান্ত করেও বাস্তবের সাথে লড়াই করা দের আজবাংলা সংবাদমাধ্যমের পক্ষ থেকে জানাই কুর্নিশ।