হাইকোর্টের নির্দেশে চাকরি গেল রাজ্যের শিক্ষাপ্রতিমন্ত্রীর কন্যার,ফেরাতে হবে বেতন

হাইকোর্টের নির্দেশে চাকরি গেল রাজ্যের শিক্ষাপ্রতিমন্ত্রীর কন্যার,ফেরাতে হবে বেতন

অধিকারীর মেয়ে অঙ্কিতা অধিকারীকে স্কুলের চাকরির থেকে বরখাস্ত করার নির্দেশ দিয়েছে হাইকোর্ট। শুধু তাই নয়, ফেরত দিতে হবে তাঁর প্রাপ্য বেতন। দুটি কিস্তিতে বেতন ফেরত দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। কলকাতা হাইকোর্ট জানিয়েছে, আজ থেকে অঙ্কিতাকে স্কুলে ঢুকতে দেওয়া যাবে না। তিনি কোথাও শিক্ষক হিসেবে নিজের পরিচয় দিতে পারবেন না।

তিনি ২০১৮ সালের নভেম্বর থেকে যত বেতন পেয়েছেন সেই টাকা দুই কিস্তিতে হাইকোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেলের কাছে জমা জমা দিতে হবে। ৭ জুন তাঁকে প্রথম কিস্তি দিতে হবে। অঙ্কিতার বিরুদ্ধে বাবার প্রভাব খাটিয়ে অবৈধ ভাবে শিক্ষকতার চাকরি নেওয়ার অভিযোগ ছিল। অভিযোগ করেছিলেন ববিতা সরকার নামে এক এসএসসি পরীক্ষার্থী।

অঙ্কিতাকে চাকরি থেকে বরখাস্ত করার নির্দেশ দিয়ে আদালত জানিয়েছে, নিজেকে শিক্ষক হিসাবেও পরিচয় দিতে পারবেন না অঙ্কিতা। আদালতের নির্দেশ, তিনি আর ওই স্কুলে ঢুকতেই পারবেন না। বিচারপতি অভিজিৎ জানিয়েছেন, প্রায় ৪১ মাসের বেতন দুই কিস্তিতে ফেরত দিতে হবে অঙ্কিতাকে। প্রথম কিস্তি দিতে হবে ৭ জুন। দ্বিতীয় কিস্তির তারিখ ৭ জুলাই।

২০১৭ সালের নভেম্বরে এসএসসি পরীক্ষার দ্বিতীয় মেধাতালিকায় অঙ্কিতার নাম ওঠে। অভিযোগ, প্রথম মেধাতালিকায় প্রথম ২০তে নাম না থাকা অঙ্কিতাকে দ্বিতীয় তালিকার একেবারে প্রথমে নিয়ে আসা হয় অবৈধ ভাবে। ওই মেধাতালিকার ২০ নম্বরে যে এসএসসি পরীক্ষার্থীর নাম ছিল তাঁর থেকেও ১৬ নম্বর কম পেয়েছিলেন অঙ্কিতা। তাঁর প্রাপ্ত নম্বর ছিল ৬১। যেখানে ২০ নম্বরে থাকা পরীক্ষার্থী ববিতার নম্বর ছিল ৭৭। অঙ্কিতার নাম মেধাতালিকায় ঢোকানোয় ববিতা চাকরির সুযোগ হারান।