জ্বালানির সমস্যা মেটাতে এক যুগান্তকারী আবিষ্কার করলেন ভারতীয় ছাত্রছাত্রীরা!

জ্বালানির সমস্যা মেটাতে এক যুগান্তকারী আবিষ্কার করলেন ভারতীয় ছাত্রছাত্রীরা!

আজ বাংলা: জ্বালানি...এই বিষয়টি নিয়ে বিশ্বের সব দেশেই কমবেশি সমস্যায় রয়েছে। এছাড়া পরিবেশ ও বায়ু দূষণের একটা অন্যতম কারণ এই জ্বালানি।

এবার এই সব সমস্যার একসঙ্গে সমাধানের উপায় বাতলে দিল আমাদের দেশেরই একদল গবেষক ছাত্রছাত্রী। জানা গিয়েছে, আইআইটি যোধপুরের ছাত্রছাত্রীদের যুগান্তকারী আবিষ্কার ‘ফুয়েল অফ দ্য ফিউচার’ বা ‘ভবিষ্যতের জ্বালানি’।

ঠিক যে পদ্ধতিতে গাছের সালোকসংশ্লেষ হয়, তার ঠিক বিপরীত পদ্ধতিতে উৎপন্ন হবে জ্বালানি। এমনটাই জানানো হয়েছে গবেষকদের তরফ থেকে।

সূত্র মারফত খবর, এই প্রক্রিয়ার জন্যও প্রয়োজন প্রচুর পরিমাণে সূর্যের রশ্মি। সেই আলোতেই জল থেকে হাইড্রোজেন আর অক্সিজেনকে আলাদা করা যাবে। এক রিপোর্ট অনুযায়ী, ‘ল্যান্থানাইড’ নামে একটি রাসায়নিক ক্যাটালিস্ট বা অনুঘটকের সন্ধান পেয়েছেন আইআইটি যোধপুরের গবেষকরা।

আর সেই অনুঘটকই অক্সিজেনকে আলাদা করে, তার থেকে তুলে আনবে বিশুদ্ধ হাইড্রোজেন। সেটাই জ্বালানি হিসেবে ব্যবহার করা যাবে।


প্রসঙ্গত, বর্তমানে, মিথেন ব্যবহার করে হাইড্রোজেন উৎপন্ন করা হয়ে থাকে। কিন্তু এই প্রক্রিয়ার খুবই খরচ সাপেক্ষ। এই পদ্ধতিতে, ১০০০ থেকে ২০০০০ ডিগ্রি তাপমাত্রার প্রয়োজন হয়। কিন্তু এই নতুন প্রক্রিয়ায় অনেক কম খরচে জ্বালানি উৎপন্ন করা সম্ভব।

আর এই পদ্ধতি বাস্তবে কার্যকর করা সম্ভব হলে, ভবিষ্যতে জ্বালানির জন্য অন্য দেশের উপর ভারতের নির্ভরশীলতা প্রায় ৩০ শতাংশ কমে আসবে বলে আশা করা হচ্ছে।