দক্ষিণ ২৪ পরগনার বিষ্ণুপুরে প্রেমে প্রত্যাখ্যান হয়ে অবসাদে আত্মঘাতী যুবক ।

বিষ্ণুপুর থানা
বিষ্ণুপুর থানা

শান্তনু পুরকাইত, আজবাংলা দক্ষিন ২৪পরগনা প্রেমে প্রত্যাখ্যান হয়ে অবসাদে আত্মঘাতী যুবক । দক্ষিণ ২৪ পরগনার বিষ্ণুপুর থানার আমতলা চণ্ডীর শান্তি ডাঙ্গা এলাকায় । দীর্ঘ ১০→১২বছরের প্রেম প্রণয়নে সংযুক্ত ছিলো অরূপ সাঁতরা বছর ২৫শের যুবক । আর বছর ২২শের যুবতী জুঁই বাগ । অরূপ সাঁতরা পেশায় রাজ মিস্ত্রির ছিলো । আর জুঁই দ্বিতীয় বর্ষের ছত্রী । উভয় পরিবারের পক্ষ থেকে তাদের ভালোবাসা মেনে নেয় । অরূপ সাঁতরা পরিবারের লোকজনেদের অভিযোগ যে জুঁই বাগ দীর্ঘ দিন ধরে অরূপের কাছে থেকে টাকা পয়সা নিতো ।বিভিন্ন প্রতিশ্রুতি দিয়ে ছিলো অরূপ কে জুঁই। বলেছিলো অরূপ কে ঘর করতে বাথরুম করতে যখন সমস্ত কিছু অরূপ তৈরি করে ফেলে তখন জুঁই অরূপ কে বিবাহ করতে অস্বীকার করে। পাশাপাশি তাকে উল্টো পাল্টা বলতে থাকে জুঁই নাকি জানিয়ে ছিলো যে আমি বিবাহ করবো না । কিন্তু সেই জুঁই বাগ ও অরূপ সাঁতরা দীর্ঘ দিন ধরে বিভিন্ন জায়গায় ঘুরে বেড়িয়েছে । জুঁই এই ভাবে ধোঁকা দেবে অরূপ ভেবে উঠতে পারিনি । গতকাল মদ্যপ অবস্থায় অরূপ সাঁতরা জুঁই বাগের বাড়িতে যায় এবং তাকে সে কেনো বিবাহ করতে পারবে না তার কারণ জিজ্ঞাসা করে তখন নাকি জুঁই তার নিজের ওরণা বের করে বলে তুই গলায় দড়িদে সেই জন্য নাকি অবসাদে গ্রস্ত হয়ে গলায় ওরণার ফাঁস লাগিয়ে আত্মঘাতী হয়েছে মেয়েটির বাড়ির কাছে বাগানে । তবে জুঁই বাগ কে আমার জিজ্ঞাসা করায় জুঁই বাগ বলে যে স্থানীয় যুবক অরূপ সাঁতরা তাকে সর্বদাই উংতপ্ত করতো। পাশাপাশি মদ্যপ অবস্থায় যেখানে সেখানে ধরে নাজেহাল করতো জুঁই বাগের বাবা চা বিক্রেতা, জুঁই রা এক ভাই এক বোন । তবে এলাকার মানুষ জন ক্ষিপ্ত হয়ে জুঁই বাগের বাড়িতে চড়াও হয় পাশাপাশি জুঁই বাগ সহ পরিবারের লোকজনেদের ঘরের মধ্যে থেকে টেনে হিঁচড়ে বের করে গন ধোলায় দিলো এবং ভাংচুর চলায় ।

এমন সমস্ত আপডেট পেতে লাইক দিন!