নদীয়ায় রাজীব কুমার গ্রেফতার প্রসঙ্গে নাম না করে মুখ্যমন্ত্রী কে আক্রমন করলেন সূর্যকান্ত মিশ্র।

মলয় দে আজবাংলা কৃষ্ণনগর বামফ্রন্টের এর ডাকে শনিবার কৃষ্ণনগর সদর শহরের পোস্ট অফিস মোড়ে বামফ্রন্টের সমাবেশ হয়। উপস্থিত চিলেন রাজ্য বামনেতা সূর্যকান্ত মিশ্র সহ জেলার একাধিক বামপন্থী নেতা নেত্রীরা। কয়েকদিন আগে বামকর্মী  বাবুলাল বিশ্বাস খুন হয়েছিলেন। তাঁর ছোট্ট শিশু, মা-বাবা মঞ্চে ছিলেন এদিন। বাবুল বিশ্বাস এর হত্যাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক কঠোর শাস্তির দাবি ওঠে ওই সভা থেকে। কে হরিদাস পাল? আসল যে মালিক তার নিজের মাথাটা সামলাক যে ওকে টাকা দেয়, ও কে ? ওর কাছে কিছু কাগজপত্র আছে, যেটা ধরা পড়লে উনি এবং ওনার ভাইপো বিপদে পড়বে। রাজীব কুমার গ্রেফতার প্রসঙ্গে নাম না করে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কে এই ভাষাতেই আক্রমন করলেন সিপিআইএম নেতা সূর্যকান্ত মিশ্র। দীর্ঘ এক ঘণ্টার বক্তব্যে রাজীব কুমার প্রসঙ্গ থেকে শুরু করে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় এবং এনআরসি নিয়েও নরেন্দ্র মোদি সরকার এবং মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরকারকেও একযোগে আক্রমণ করেন। সূর্যকান্ত আরও বলেন, “আমরা এনআরসি করতে দেবো না, তার জন্য বামপন্থীদের লড়াই করতে হবে, আমাদের কোনো পয়সা দিতে হবে না, সাইবার ক্যাফে লাগবে না, ডকুমেন্ট খোঁজাখুঁজি করতে হবে না কাওকে।” বামফ্রন্ট কর্মীরা লড়াই চালিয়ে যাবে বলে আশ্বাস দেন তিনি। বামপন্থীরাই পারে একমাত্র NRC বন্ধ করতে, বলে দাবি সূর্যকান্তের।সাংবাদিকদের প্রশ্নে বাবুলাল বিশ্বাস খুনি গ্রেপ্তার প্রসঙ্গে তিনি বলেন, এই দুজন গ্রেপ্তার হতো না যদি আমরা না থাকতাম। এরা কেউ ছেড়ে পালাতে পারবে না একদিন না একদিন আসতেই হবে। এর পাশাপাশি এনআরসি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমরা আছি, অসময় যারা প্রতারিত হয়েছে আমরা তাদের সঙ্গেও আছি, সারা ভারতে আমরা সবার সঙ্গেই থাকব। সেইসঙ্গে রাজিব কুমারের গ্রেপ্তারি প্রসঙ্গে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, কে ওই হরিদাস পাল ? ওর যে মালিক আছে যেখান থেকেও পয়সা পায়, তার নিজের মাথা সামলাক। ওর কাছে শুধুমাত্র কিছু কাগজপত্র রয়েছে, যেটা ধরা পড়লে দিদি এবং ভাইপো এরা দুজনেই বিপদে পড়বে।