ক্যানসার প্রতিরোধে দেখে নিন টমেটোর উপকারিতা

ক্যানসার প্রতিরোধে দেখে নিন টমেটোর উপকারিতা

বিশ্বে যেসব সবজির চাহিদা খুব বেশি, তাদের মধ্যে টমেটো অন্যতম। আমাদের দেশে শীতকালে টমেটোর চাহিদা বেড়ে গেলেও প্রায় পুরো বছরজুড়েই টমেটো পাওয়া যায় বাজারে। টমেটো আমাদের শরীরের জন্য খুবই উপকারী। শরীরের বিষাক্ত উপাদান বের করে দেওয়া, ক্যানসার প্রতিরোধ, ইউরিন ইনফেকশন দূর করা, ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণসহ সার্বিক সুস্থতায় এর জুড়ি মেলা ভার।

ইউরোপে টমেটোর গুণ সম্পর্কে বলা হয়, ‘টমেটো যদি লাল হয়, চিকিৎসকের মুখ হয় নীল।’ অর্থাৎ নিয়মিত টমেটো খেলে চিকিৎসকের কাছে যাওয়ার দরকার হয় না। এখনকার কর্মব্যস্ত জীবনে যেকোনো সময় মানুষের জীবনে পেয়ে বসে অবসাদ, বিষণ্নতা। টমেটো খেলে এই অবসাদ থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।সুস্বাদু ও পুষ্টির জন্য গোটা বিশ্বেই টমেটো সমাদৃত।এছাড়া টমেটোতে থাকা ভিটামিন এবিসিকে, ক্যালসিয়াম, পটাসিয়াম, লাইকোপিন, ক্রোমিয়াম পুষ্টি উপাদান দেহের জন্য প্রয়োজনীয়। কয়েকটি গবেষণার তথ্য অনুযায়ী, টমেটোতে থাকা উচ্চমানের লাইকোপিন প্রস্টেট, কোলন ও পাকস্থলির ক্যানসারের সেল তৈরি হতে দেয় না। লাইকোপিন হচ্ছে এক প্রকার প্রাকৃতিক অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট যা ক্যান্সারের সেল তৈরিতে বাধা দেয়।

অবসাদ ও সর্দি মোকাবিলা করতে পারে টমেটো। টমেটোতে থাকা বিটা ক্যারোটিন শরীরে ভিটামিন এ হিসেবে রূপান্তরিত হয়। এতে শরীর সুরক্ষিত থাকে। যেসব ভাইরাস সর্দি-কাশি সৃষ্টি করে, তাদের বিরুদ্ধে লড়তেও সাহায্য করে ক্যারোটিন। সাইট্রিক ও ম্যালিক অ্যাসিডের কারণে টমেটোর কিছুটা টক স্বাদ হয়। এতে গ্যাস্ট্রিক মিউকোসা সুরক্ষিত থাকে।পাকস্থলী সক্রিয় থাকে এবং বিপাকীয় কার্যক্রম বাড়ে। মূত্রথলির পাথর দূর করে নিয়মিত টমেটো যারা খায়, তারা পিত্তথলির পাথরসহ বিভিন্ন রোগ থেকে নিরাপদে থাকে। টমেটোতে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টি অক্সিডেন্ট, মিনারেল ও ভিটামিন থাকে। ইউরিনের ইনফেকশন দূর করে নিয়মিত টমেটো খেলে ইউরিনারি ট্র্যাক্ট ইনফেকশন দূর হয়, এমনকি পিত্তথলির ক্যানসারও প্রতিরোধ হয়।

 এর কারণ হলো টমেটোতে প্রচুর জল থাকে, যা প্রস্রাবের পরিমাণ বাড়িয়ে দিয়ে রোগমুক্ত করে। এতে করে শরীর থেকে বিষাক্ত উপাদান, ইউরিক অ্যাসিড, অতিরিক্ত লবণ বের হয়ে যায়। সুন্দর ত্বকের জন্য নিয়মিত টমেটো খেলে ত্বক, চুল, হাড় ও দাঁত ভালো থাকে। টমেটো ত্বকের রোদে পোড়া দাগ দূর করে। নিয়মিত টমেটো খেলে আলট্রা ভায়োলেট রশ্মির ক্ষতি থেকে রক্ষা পায় ত্বক।ত্বকের বলিরেখা দূর করতেও কার্যকর এটি। ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ বেশকিছু গবেষণায় দেখা গেছে, নিয়মিত টমেটো খেলে টাইপ টু ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে থাকে। হাইপার টেনশন কমায় উচ্চ রক্তচাপ বা হাইপার টেনশন যাদের আছে, তারা নিয়মিত টমেটো খেলে উপকার পাবেন। টমেটোতে প্রচুর পটাশিয়াম থাকে বলে তা রক্তনালীতে রক্তের চাপ কমিয়ে মানসিক চাপ কমায়।

হজমের জন্য উপকারী টমেটো ডায়ারিয়া ও কোষ্ঠকাঠিন্য নিরাময় করে হজমে উপকারী ভূমিকা রাখে। এছাড়া জন্ডিস প্রতিরোধ করা ও শরীর থেকে ক্ষতিকর উপাদান দূর করতে টমেটো বেশ উপকারী। দৃষ্টিশক্তি ভালো রাখে টমেটোতে থাকা ভিটামিন 'এ' আমাদের দৃষ্টিশক্তি ভালো রাখে।রাতকানা রোগ ও বয়স বাড়ার কারণে অন্ধত্ব দূর করতেও টমেটো উপকারী। ধূমপানের ক্ষতিকর প্রভাব কমায় টমেটোতে থাকা দুটি উপাদান ক্লোরোজেনিক অ্যাসিড ও ক্যুমারিক অ্যাসিড ধূমপানের ফলে আমাদের শরীরে ক্যানসার সৃষ্টিকারী উপাদান কার্সিনোজেনের বিরুদ্ধে লড়াই করে। এছাড়া টমেটোতে থাকা ভিটামিন এ শরীরে কার্সিনোজেনের প্রভাব কমিয়ে দিয়ে ফুসফুস ক্যানসার প্রতিরোধ করে।