রাষ্ট্রপতির শাসন জারি করার সম্ভাবনা উড়িয়ে দিচ্ছেন না রাজ্যপাল

রাজ্যপাল ও মুখ্যমন্ত্রী
রাজ্যপাল ও মুখ্যমন্ত্রী

আজবাংলা সন্দেশখালিতে হিংসা নিয়ে গভীর উদ্বেগ জানিয়ে গত কালই রাজ্য সরকারকে ‘অ্যাডভাইসরি’ পাঠিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। সেই আবহে আজ কেশরীর সঙ্গে নরেন্দ্র মোদী ও অমিত শাহের পূর্বনির্ধারিত বৈঠক তাৎপর্যপূর্ণ হয়ে ওঠে।

প্রতি মুহুর্তের খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিন

এ দিন বেলা বারোটায় প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করতে যান কেশরী। পৌনে একটায় কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে। দুই বৈঠকেই রাজ্যের পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা হয়েছে বলে জানান রাজ্যপাল। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক সূত্রের বক্তব্য, রাজ্যে হিংসার বাতাবরণ নিয়ে অমিত শাহকে অবহিত করার পাশাপাশি একাধিক হিংসার ঘটনার পিছনে শাসক দলের উস্কানি রয়েছে বলেই জানিয়েছেন রাজ্যপাল। রাজ্যে শান্তি ফেরাতে প্রয়োজনে সর্বদল বৈঠকের পক্ষেও আজ সওয়াল করেছেন রাজ্যপাল। জানিয়েছেন, দ্রুত তিনি এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন। কিন্তু তৃণমূল মতে রাজ্যের পরিস্থিতি এমন কিছু খারাপ নয় যে সর্বদল বৈঠক ডাকতে হবে। তার পরেও যদি রাজ্যপাল বৈঠক ডাকেন, তা হলে দলে আলোচনা করে যোগদানের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।লোকসভা ভোটের পরে রাজ্যে যে ভাবে হিংসা ছড়িয়েছে, তাতে সংবিধানের ৩৫৬ ধারা প্রয়োগ করে রাষ্ট্রপতির শাসন জারি করার সম্ভাবনা উড়িয়ে দিচ্ছেন না রাজ্যপাল কেশরীনাথ ত্রিপাঠী।বৈদ্যুতিন সংবাদমাধ্যমে দেওয়া সাক্ষাৎকারে রাষ্ট্রপতি শাসনের প্রয়োজনীয়তা সংক্রান্ত প্রশ্নের জবাবে ‘‘হতেও পারে’’ বলে মন্তব্য করলেও কেশরীর দাবি, ‘‘আমি প্রধানমন্ত্রী বা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে এ নিয়ে আলোচনা করিনি।’’ রাজ্যপালের ‘হতেও পারে’ মন্তব্যকে তাৎপর্যপূর্ণ বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহল।রাজ্যপাল বলেন যখন দাবি উঠবে, তখন কেন্দ্র তা ভেবে দেখবে।

এমন সমস্ত আপডেট পেতে লাইক দিন!