হাম সফর এক্সপ্রেস হেনস্তার শিকার ভারত সেবাশ্রমের স্বামী জ্যোতির্ময় নন্দ উৎপল মহারাজ

ভাস্কর রায় আজবাংলা কালিয়াগঞ্জ উত্তর দিনাজপুর জেলার কালিয়াগঞ্জ এর ভারত সেবাশ্রম মিশনের মহারাজ স্বামী জ্যোতির্ময় নন্দ উৎপল মহারাজ এবার হেনস্তার শিকার হলেন যোগীর রাজ্য উত্তরপ্রদেশে হাম সফর এক্সপ্রেস। ফলে এই ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে কালিয়াগঞ্জ শহর জুড়ে। জানা যায় ৯ জন ভক্ত কে নিয়ে অমরনাথ দর্শন সেরে স্বামীজি বাড়ি ফিরছিলেন গতকাল হামসাফর এক্সপ্রেস ট্রেনে করে। কিন্তু ফিরতি পথে ই দেখা গেল বিপত্তি। এই ট্রেনের ১৩ নম্বর কামরায় ২৬ এবং২৮ নম্বর সিটে তাদের রিজার্ভেশন ছিল । কিন্তু তা সত্বেও ট্রেনে কোন একটি স্টেশনে মেহনত রহমান ও রহমান নামে দুই মহিলা ও তার সঙ্গে আরো দুইজন সেই কামরায় উঠে পড়ে এবং স্বামীজীর আসনে বসে পড়ে। এরপর গতকাল বিকেল তিনটের সময় যখন স্বামীজীর তাদের আসন থেকে তাদের সরে যেতে বলে তখনই দেখা দেয় বিপত্তি। তারা সেই আসন থেকে উঠবে না বলে স্বামীজীকে ধুমকি দেয় এবং বলে তার স্বামী আর পি এফ এর একজন অফিসার এমন যদি তারা করেন তাহলে তাদের পরিস্থিতি খারাপ করে দেবেন। এটা বাংলা নয় বলে স্বামীজি কে ধমকি দেন ।এরপর খানিকের জন্যে তারা চুপচাপ থাকার পর রাত বারোটার সময় যখন লখনও স্টেশনে এই ট্রেন থামে সেই সময় এই অবৈধ যাত্রী গন স্টেশন এ নেমে আরপিএফ জওয়ান দের নিয়ে এসে তাদের মারধর করে এবং ট্রেন থেকে প্লাটফর্মে নামিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করে। কোনোক্রমে তারা বেঁচে যান কিছু শুভানুধ্যায়ীদের প্রচেষ্টায়। কালিয়াগঞ্জ এর ভারত সেবাশ্রম মিশনের মহারাজ জানান তারা অমরনাথ দর্শন করে বাড়ি ফেরার পথে ট্রেনের মধ্যে যে ধরনের তাদের অভিজ্ঞতা হল তা নজিরবিহীন। উত্তরপ্রদেশের ট্রেনে নিরাপত্তা ব্যবস্থা এতটাই নিম্নমানের যে বলার আর অপেক্ষা রাখে না। স্বামীজি বলেন ভারতবর্ষের বুকে এই ধরনের ঘটনা ঘটতে পারে তা তারা কল্পনাও করতে পারেননি।কোন বৈধ যাত্রীকে একজনের অভিযোগের ভিত্তিতে যেভাবে আরপিএফ এর জওয়ানরা লখনও স্টেশনে তাদের হেনস্থা করল তা নজিরবিহীন ঘটনা। স্বামীজি আরো বলেন যারা এই ধরনের ঘটনা ঘটালো তাদের উপযুক্ত শাস্তি হওয়া দরকার।জানা যায় স্বামীজীর বর্তমানে কলকাতা স্টেশনে নেমে সেখান থেকে বালুরঘাট গামী ট্রেনে করে এখন বাড়ি ফিরছে।