প্রবীণদের ‘বাংলা গ্যাং’-এর দাপটে ঘুম ছুটেছে দেশের রেল পুলিশের

আজবাংলা  প্রবীণ নাগরিকদের ‘বাংলা গ্যাং’-এর দাপটে ঘুম ছুটেছে রেল পুলিশের! কারণ, গোটা পূর্ব উপকূল ধরে, ভুবনেশ্বর থেকে চেন্নাই— ইস্ট কোস্ট রেলওয়ের বিভিন্ন দূরপাল্লার ট্রেনে পর পর ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটছে। পুলিশের দাবি, এর পিছনে রয়েছে সেই বাংলা গ্যাং। গত কয়েক মাসে একাধিক চুরির অভিযোগ পেয়েছিল রেল পুলিশ। যেখানে অভিযোগকারীরা উল্লেখ করেছিল বার্থের কাছে থাকা বয়স্ক ব্যক্তির কথা। বুধবার ভোরে ভুবনেশ্বর থেকে চেন্নাইগামী একটি ট্রেনের স্লিপার কোচের এক যাত্রী বিশাখাপত্তনম স্টেশনে রেল পুলিশের কাছে একটি অভিযোগ করেন। সেখানে তিনি জানান, চলন্ত ট্রেন থেকে তাঁর গলার সোনার হার চুরি গিয়েছে। ওই যাত্রী রেল পুলিশকে জানান, বিশাখাপত্তনমের আগে ভিজিয়ানাগ্রাম স্টেশনে যখন ট্রেনটি দাঁড়ায়, তখনও তাঁর গলায় হার ছিল। ওই যাত্রী পুলিশকে জানিয়েছিলেন যে, তাঁর বার্থের কাছে এক বয়স্ক ব্যক্তিকে তিনি দেখেছিলেন সেই সময়ে। বিশাখাপত্তনম রেল পুলিশের এক আধিকারিক বলেন, ‘‘যে হেতু ভিজিয়ানাগ্রাম এবং বিশাখাপত্তনমের মধ্যে অন্য কোথাও ওই ট্রেন দাঁড়ায়নি, সেখান থেকে আমাদের সন্দেহ হয়, ছিনতাইকারীরা বিশাখাপত্তনমেই নেমেছে। ” সেই সূত্র ধরেই স্টেশনের সিসি ক্যামেরার ফুটেজ পরীক্ষা করে দেখতে গিয়ে কয়েক জন বয়স্ক ব্যক্তির একটি দলকে চিহ্নিত করা হয়। ওই দলটি স্টেশনের ঠিক বাইরেই বসে ছিল।পুলিশ ওই দলটিকে আটক করে তল্লাশি করতেই অভিযোগকারীর খোয়া যাওয়া সোনার হার পাওয়া যায়। সঙ্গে মেলে ২১০ গ্রাম সোনার গয়না। পুলিশের দাবি, সবটাই লুঠের মাল। তদন্তকারীদের অবাক করেছে ধৃতদের জেরা করে উঠে আসা অন্য এক তথ্য।‘‘জেরায় এরা দাবি করেছে, গ্যাং-এর মাথার নাম গণেশ সরকার নামে এক ব্যক্তি। তাঁর বাড়ি উত্তর ২৪ পরগনার বসিরহাটে।”তদন্তকারীরা জানতে পেরেছেন, উত্তর ২৪ পরগনার বাদুড়িয়াতে রীতি মতো প্রশিক্ষণ শিবির খুলে বসেছে ওই গণেশ সরকার। সেখানে প্রথমে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয় কী ভাবে ঘুমন্ত যাত্রীর গলা থেকে সোনার হার বা গয়না হাতাতে হবে। সেই প্রশিক্ষণে দড় হয়ে উঠলে ৭ থেকে ১০ জনের একটি দলকে পাঠানো হয় অপারেশনে। পাঁচ থেকে সাত দিনের যাত্রা। পর পর ট্রেন বদলে অপারেশন। তার পর সোজা ডেরায় ফেরা। ওই পাঁচ সাত দিনের খরচ-খরচাও দলের পাণ্ডা গণেশই জোগায় দলের সদস্যদের। ট্রেন ভাড়া থেকে শুরু করে খাবার খরচ— সঙ্গে জরুরি খরচের জন্য তহবিল। সেই দল লুঠের মাল নিয়ে ফিরে এলে শুরু হয় ভাগ বাঁটোয়ারা। তার একটা বড় অংশই নেয় দলের পাণ্ডা।  তদন্তকারীদের দাবি, দলে বয়স্কদের নিয়োগ করা হয় যাতে, যাত্রীরা সন্দেহ না করেন।বিশাখাপত্তনম রেল পুলিশ এবং রেল সুরক্ষা বাহিনীর বিশেষ দল গঠন করা হয়েছে গণেশকে পাকড়াও করতে। যোগাযোগ করা হয়েছে এ রাজ্যের রেল পুলিশ এবং বসিরহাট জেলা পুলিশকেও।বিশাখাপত্তনম রেল পুলিশ এর পরেই আট জনের দলটিকে গ্রেফতার করে। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, ধৃতেরা হল সুশান্ত রায় (৫২), শ্রীবাস দাস (৪৫), দিনু বিশ্বাস (৬০), তপন ভট্টাচার্য (৬২), রবি সেন (৬২), জয় বিশ্বাস (৪৯), ভোলা মণ্ডল (৫২) এবং সমীর মিস্ত্রি (৫৮)। এরা প্রত্যেকেই বনগাঁ, বসিরহাট, গোপালনগর-সহ উত্তর ২৪ পরগনার বিভিন্ন এলাকার বাসিন্দা। রাজ্যের রেল পুলিশ সূত্রে খবর, দিনু বিশ্বাস, রবি সেন শিয়ালদহ শাখার কুখ্যাত ছিনতাইবাজ। শিয়ালদহ জিআরপি অনেক বার এঁদের গ্রেফতার করেছে। রবি সেনের বাড়ি উত্তর ২৪ পরগনার গোবরডাঙায়।এখানে তাড়া খেয়ে এখন নতুন জায়গায় ওরা অপরাধ শুরু করেছে।