সরকারি কর্মীদের ন্যূনতম বেসিক ১৭,৯৯০কর্মীদের পুজোয় লম্বা ছুটি সুখবর দিলেন মুখ্যমন্ত্রী

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়
মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

আজবাংলা নেতাজি ইন্ডোরে তৃণমূলের রাজ্য সরকারি কর্মচারী সংগঠনের সভায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানালেন, রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের বেতন বৃদ্ধি নিয়ে  পে কমিশন যা সুপারিশ করবে তা মেনে নেওয়া হবে।রাজ্যের কর্মীদের ন্যূনতম বেসিক মাইনে বেড়ে করা হল ১৭,৯৯০। ৬ লক্ষ টাকা থেকে বেড়ে গ্র্যাচুইটি হল ১০ লক্ষ টাকা। নয়া বেতন কাঠামো আগামী জানুয়ারি থেকে কার্যকর করা হবে। ২০১১ সালে ক্ষমতায় আসার সময় দ্বিগুণ বেতন বৃদ্ধির প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল তৃণমূল কংগ্রেস। বেতন কমিশনের সুপারিশ তো বটেই, বকেয়া রয়েছে মহার্ঘ ভাতাও। ২০১৫ সালের ২৭ নভেম্বর গঠন করা হয়েছিল গঠন করা হয়েছিল ষষ্ঠ বেতন কমিশন। কিন্তু সুপারিশ পেশের মেয়াদ কয়েকবার বাড়ায় রাজ্য সরকার। পাঁচ দফায় বাড়ানো হয়েছে মেয়াদ। দীর্ঘদিন ধরে বেতনবৃদ্ধি ঝুলে থাকায় ক্ষোভ বাড়ছিল সরকারি কর্মচারীদের মধ্যে। লোকসভা ভোটেও সেই ক্ষোভের প্রতিফলন দেখা গিয়েছে। ব্যালটে সব জায়গাতেই শাসক দলের চেয়ে এগিয়ে ছিল বিজেপি।এদিন মমতা বলেন,”ষষ্ঠ বেতন কমিশনের রিপোর্টের প্রথম অংশের রিপোর্ট পেয়েছি আজ। আমি নীতিগতভাবে বলছি, ওনারা যে সুপারিশ করেছেন, আমরা মেনে নেব। আমি অর্থনীতিটা কম বুঝি। ডিএ প্লাস বেতন কমিশন, আগে ১০০ টাকা বেসিক পে ছিল, ডিএ যুক্ত হলে আপনি পেলেন ১২৫। এরপর ডিএ ও পে কমিশন মার্জার হলে তখন এটা হবে ২৫৭। অর্থাত্ ১২৫ থেকে ২৫৭-য় দাঁড়াবে। ওনারা যেটা করেছেন, নূন্যতম বেসিক পে ৭০০০টাকা ছিল, সেটা বাড়িয়ে করা হয়েছে ১৭,৯৯০। এছাড়াও এইচআরও, হাউস রেন্ট এসব আমার উপরে ছেড়ে দিন। পে কমিশন চলবে। আমি কমাবো না। সুপারিশ মানতে গেলে ১০ হাজার কোটি টাকার বেশি খরচ হবে।” কর্মীদের ক্ষোভের কথা বুঝেই এদিন মমতা মনে করিয়ে দেন, বাম জমানায় মহার্ঘ ভাতা বেড়েছিল ৩৫ শতাংশ। তাঁর ৮ বছরে বেড়েছে ৯২ শতাংশ। একইসঙ্গে কেন্দ্রীয় সরকারের পেনশন প্রকল্প নিয়েও তোপ দেগেছেন মমতা। দাবি করেছেন, কর্মীদের টাকা কেটেই ডিএ পুষিয়ে দিচ্ছে কেন্দ্রীয় সরকার। সরকারি কর্মচারীদের আশ্বস্ত করে মুখ্যমন্ত্রী বলেন পয়লা জানুয়ারি থেকে নতুন বেতন কাঠামো চালু করার চেষ্টা করব। মুখ্যমন্ত্রীর ঘোষণাকে হাততালি দিয়ে স্বাগত জানান সরকারি কর্মচারীরা। মুখ্যমন্ত্রী জানতে চান, কী খুশি তো? জবাব আসে, হ্যাঁ। এদিন তিনি সরকারি কর্মীদের জন্য টানা ১৪ দিনের ছুটি ঘোষণা করেন। এবার পুজোয় সেই ছুটি উপহার পেতে চলেছেন সরকারি কর্মীরা। মমতা বলেন, আগে কোনও সরকার এভাবে ছুটি দেয়নি। সবারই একটা পরিবার আছে, একথা ভেবেই ছুটি বাড়িয়ে টানা ১৪ দিন করেছেন বলে জানান মমতা। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ঘোষণা অনুযায়ী, পুজোর ছুটি পাবেন ৩ অক্টোবর থেকে ১৫ অক্টোবর পর্যন্ত। তার আগে ২ অক্টোবর গান্ধী জয়ন্তী। তারপর দিন পঞ্চমীতে ছুটি দেওয়া হয়েছে এবার। আর পুজোর পরও দুদিন ছুটি দেওয়া হয়েছে। ১৩ অক্টোবর লক্ষ্মীপুজো। লক্ষ্মীপুজোর পর ১৪ ও ১৫ অক্টোবরও ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। তিনি বলেন, আমাদের সরকার সরকারি কর্মীদের জন্য এই ছুটি ঘোষণা করেছে কারণ, আমরা চাই সরকারি কর্মীরাও পরিবার নিয়ে ছুটি কাটিয়ে আসুন কোথা থেকে।