এবার রাজনীতি থেকে স্বেচ্ছাবসর চেয়ে মুকুল-পুত্র শুভ্রাংশুর ফেসবুক পোস্ট ঘিরে জল্পানা

এবার রাজনীতি থেকে স্বেচ্ছাবসর চেয়ে মুকুল-পুত্র শুভ্রাংশুর  ফেসবুক পোস্ট ঘিরে জল্পানা

আজবাংলা    কিছুদিন আগে পর্যন্ত মুকুল রায়ের দলবদল নিয়ে বিস্তর জল্পনা চলেছে বঙ্গ রাজনীতিতে। এবার ছেলের পালা। তবে, শুভ্রাংশু রায়ের দলবদলের এই জল্পনা কারও মনগড়া নয়। তিনি নিজেই এক ফেসবুক পোস্টে নিজের রাজনৈতিক ভবিষ্যত্‍ নিয়ে জল্পনার বীজটি বপন করেছেন।ওই নেতা যা-ই বলুন, এ দিন বেলা ১২টা নাগাদ করা ওই ফেসবুক পোস্ট বিকাল পর্যন্ত শুভ্রাংশুর প্রোফাইলে রয়েছে।

দলের তরফে সেই পোস্ট তুলে নেওয়ার জন্য তাঁকে অনুরোধ করা হবে কি না, সে বিষয়ে অবশ্য কোনও নেতা আলোকপাত করতে পারেননি। প্রসঙ্গত, সক্রিয় রাজনীতি করার পাশাপাশিই শুভ্রাংশু একাধিক সংস্থার কর্ণধারও বটে। ফেসবুকে তাঁর 'ফলোয়ার'-এর সংখ্যা ৩০ হাজারের কাছাকাছি। ফলে তাঁর ওই পোস্ট যে ইতিমধ্যেই বহু মানুষ দেখেছেন বা পড়েছেন, তা স্পষ্ট।

যা থেকে এই উপসংহারে পৌঁছনোও অসম্ভব নয় যে, এর ফলে বিজেপি যথেষ্ট 'অস্বস্তি'-তে পড়ল।  শুভ্রাংশুর এই ফেসবুক পোস্টে দলীয় কোন্দলের সেই অভিযোগ আরও জলবাতাস পাবে বলেই ধারনা বিজেপি-র একাংশের। ঘটনাপ্রবাহ বলছে, মুকুল তৃণমূল ত্যাগ করার পরেও বেশ কিছুদিন তৃণমূলে ছিলেন শুভ্রাংশু। তখন তাঁকে তৃণমূলের তরফে বিভিন্ন রাজনৈতিক কটূকাটব্যেরও শিকার হতে হয়েছিল।

তখনও তিনি মাঝেমধ্যে মুখ খুলতেন। অতঃপর কালক্রমে তিনিও বাবার পদাঙ্ক অনুসরণ করে বিজেপি-তে আসেন। কিন্তু সেখানেও বিভিন্ন বিষয়ে তাঁর অনুযোগ ছিল। তবে এ বারের মতো একেবারে 'স্বেচ্ছাবসর'-এর প্রসঙ্গ কখনও আনেননি শুভ্রাংশ। তাত্‍পর্যপূর্ণ ভাবে, তিনি স্বেচ্ছাবসরের কথা ঘোষণা করেননি। শুধু প্রশ্ন তুলেছেন। যা থেকে দলের একাংশের অনুমান, শুভ্রাংশু শেষপর্যন্ত তেমনকিছু করবেন না। এই পোস্টের মারফতে তিনি নিজের ক্ষোভ এবং অপ্রসন্নতার কথা জনসমক্ষে জানিয়ে রাখলেন।

 শুভ্রাংশুর রাজনৈতিক প্রতিপত্তিকে লঘু করে দেখানো হচ্ছে বহু ক্ষেত্রে, সেটাও তাঁর অসন্তোষের অন্যতম কারণ। তাছাড়া, দলের অন্দরে তাঁকে নিয়ে কয়েকজন বিরূপ মন্তব্যও করেছে সম্প্রতি। শোনা যাচ্ছে, দিন কয়েক আগে ওই বীজপুর এলাকাতেই নাকি দলের এক জরুরি বৈঠকে ডাকা হয়নি সেখানকার বিধায়ককে। যা নিয়ে শুভ্রাংশুর ক্ষোভ সপ্তমে চড়েছে।