নাগরিকত্ব বিল নিয়ে উত্তপ্ত ত্রিপুরা, ১৪৪ ধারা জারি।

Tripura heated with citizenship bill
উত্তপ্ত ত্রিপুরা

আজবাংলা  আগরতলা   বিজেপির সরকারের শরিক আইপিএফটি সমর্থন প্রত্যাহারের কথা চিন্তাভাবনা করছে বলে জানিয়েছে। প্রতিবেশী অসমেও শরিক অসম গণ পরিষদ নাগরিকত্ব বিল নিয়ে বিজেপি সরকারের ওপর থেকে সমর্থন প্রত্যাহার করে নিয়েছে। ত্রিপুরার উপজাতি বিষয়কমন্ত্রী তথা আইপিএফটির সাধারণ সম্পাদক মেভর জামাতিয়া বলেন দীর্ঘদিন ধরেই নাগরিকত্ব বিল নিয়ে বিরোধিতা করছে আইপিএফটি। বিষয়টি নিয়ে দলের একগিকিউটিভ কমিটির বৈঠক শীঘ্রই হবে। সেখানে সরকারকে সমর্থন করার বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করা হবে।  ত্রিপুরা ভেঙে আদিবাসী অধ্যুষিত অঞ্চলে পৃথক রাজ্য গঠনের দাবিও ফের তুলেছেন এই উপজাতি নেতা। তিনি বলেছেন, আইপিএফটির দাবি একটাই, ত্রিপুরার তফশিলি এলাকাগুলিকে নিয়ে পৃথক রাজ্য গঠন। এবারই প্রথম নয়, গতবছরেও ত্রিপুরার বিজেপি সরকার বিরোধী কথা বলেছে, সরকারকে সমর্থনকারী এই উপজাতি দল। গতবছরে আইপিএফটি অসমের মতোই ত্রিপুরাতেও এনআরসি প্রয়োগের দাবি করেছিল।  দুপক্ষের সংঘর্ষ থামাতে গিয়ে ত্রিপুরার জিরানিয়ায় পুলিশকে গুলি চালাতে হয়। পুলিশের গুলিতে কয়েকজন আহত হন। এলাকার ইন্টারনেট পরিষেবা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।  ঘটনায় ম্যাজিস্ট্রেট পর্যায়ের তদন্তে নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী প্লব দেব। ত্রিপুরার জিরানিয়ার মাধব বাড়িতে এখনও প্রচুর সংখ্যায় নিরাপত্তাকর্মী মোতায়েন রাখা রয়েছে। সতর্কতা মূলক ব্যবস্থা হিসেবে সেখানে ১৪৪ ধারা বলবত রয়েছে।  পুলিশ অফিসার সৌমেন দাস জানিয়েছেন, মাধববাড়ি এবং সংলগ্ন এলাকায় পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে সময় লাগবে। ফলে সেখানে ১৪৪ ধারা জারি করে রাখা হয়েছে। ভুয়ো ম্যাসেজ ছড়ানো বন্ধ করতে মোবাইল ইন্টারনেটের ওপরও নিষেধাজ্ঞা বলবত রয়েছে। ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেবের অভিযোগ, রাজ্যের বিজেপি-আইপিএফটি সরকারের বদনাম করতে এবং রাজ্যের শান্তিশৃঙ্খলা বিঘ্নিত করতে বিরোধীরা ষড়যন্ত্রে লিপ্ত। স্থানীয় গ্রামবাসী এবং এলাকার দোকানদাররা সব থেকে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত ওইদিনের সংঘর্ষের ঘটনায়। উপজাতি এবং অউপজাতি মিলিয়ে ২১ টি দোকান সেদিনের ঘটনায় পুরো অথবা আংশিক পুড়ে গিয়েছে। অনেকেরই একমাত্র উপার্জনের রাস্তা ছিল এইসব দোকান থেকে। জামাকাপড়ের দোকান থেকে, মুদিখানা, আগুনে পুড়েছে সবই। শনিবারও টিটিএএডিসি এলাকায় বারো ঘন্টার বনধের ডাক দেয় বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলি।