অসম থে‌কে ত্রিপুরা হ‌য়ে বাংলা‌দে‌শে ড্রাগস পাচার কারি দের রিমা‌ন্ডে নিল ত্রিপুরা পু‌লিশ

আমবাসা পু‌লিশ
ত্রিপুরা পু‌লি‌শ

আজবাংলা আগরতলা  মঙ্গলবার দুপু‌রে অসম থে‌কে আগরতলার উদ্দেশে যাত্রাকারী নম্বরবিহীন একটি বলেরো গাড়িতে আমবাসা পু‌লিশ তালাশি চালিয়ে নগদ ২১ লক্ষ ৪,৬০০ টাকা উদ্ধার করেছিল। এর সঙ্গে আটক করা হয় তিন যুবককে। এদের নাম তুহিন দত্ত, ফজর আলি এবং আখতার হোসেন। এরা তিনজনই সোনামুড়া (ত্রিপুরা)-র বাসিন্দা। তাদের জিজ্ঞাসাবাদের সূত্র ধ‌রে পু‌লিশ জানতে পারে, ওপর একটি গাড়িতে ক‌রে অস‌মের শিলচর থে‌কে ত্রিপুরায় প্রবেশ করছে প্রায় ৭০ লক্ষ টাকার ড্রাগস। তারা গা‌ড়ি‌টি‌কে প্র‌টেকশন দি‌য়ে ত্রিপুরায় প্র‌বে‌শের ব্যবস্থায় ছিল। এই খব‌রে পু‌লিশ ও গো‌য়েন্দা বিভা‌গের কর্তাদের দৌড়ঝাঁপ শুরু হয়। মা‌ঠে না‌মেন গোয়েন্দা দফতরের ডিএসপি-সহ চোরাইবাড়ি থানার পুলিশ অফিসাররা। তাঁদের তত্‍পরতায় পাতা জা‌লে ধরা প‌ড়ে আরও চার যুবক-সহ প্রায় ৭০ লক্ষ টাকার ড্রাগস। এদের নাম শংকর সরকার, সৈকত দত্ত, লিটন ঘোষ এবং সুজিত দাস। তাদের কাছ থেকে ১২ হাজার ইয়াবা ট্যাবলেট এবং ৩৬ গ্রাম হেরোইন বাজেয়াপ্ত ক‌রে পুলিশ। বুধবার আমবাসা থেকে ধৃত তিন যুবক-সহ চোরাইবাড়ি থানায় ধৃত অন্য চারজন‌কে একই সঙ্গে আদাল‌তে তু‌লে প‌রে পৃথক পৃথকভা‌বে তাদের‌ রিমা‌ন্ডে নেয় পু‌লিশ। এর মধ্যে ধৃত লিটন ঘোষ নামের যুবক বেশি ড্রাগসে বুঁদ হওয়ায় তা‌কে হাসপাতালে ভ‌রতি ক‌রে চি‌কিত্‍সার ব্যবস্থা ক‌রে দেওয়া হ‌য়ে‌ছে ব‌লে জানান স্থানীয় পু‌লিশের ইনচার্জ কাজল রুদ্রপাল। ধৃত‌দের বিরু‌দ্ধে ভারতীয় ফৌজদারি দণ্ডবি‌ধির ৫৯/১৮ ‌সিআর‌বি নম্ব‌রে ২২ ‌সি, ২৯/৮ নম্ব‌রে মামলা রজু করা পু‌লি‌শের প্রাথ‌মিক জেরায় ধরা পড়েছে, ধৃত নেশা সামগ্রী পাচারকারীদের সবাই ড্রাগস‌-আসক্ত। ঘণ্টার পর ঘণ্টা ড্রাগ‌সের নেশায় বুঁদ হয়ে থাক‌তে হয় তাদের। তদন্তকা‌রী পু‌লিশ কর্তারা জানান, ধৃতরা ড্রাগ‌সের প্রকৃত মা‌লিক নয়। ওরা বাহকমাত্র। তাই ড্রাগসের মূল সি‌ন্ডি‌কেট‌কে খুঁজে বের কর‌তে পু‌লিশ তদন্ত জা‌রি রে‌খে‌ছে। সাতজনকে ধর্মনগর আদালতে তুলে তা‌দের‌ তিন দি‌নের জন্য পু‌লিশ রিমা‌ন্ডে নিয়েছে। ধৃত‌দের রিমা‌ন্ডে নি‌য়ে টানা জিজ্ঞাসাবাদ শুরু ক‌রে‌ছে পু‌লিশ।