বাংলাদেশের ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সংখ্যালঘু হিন্দু পরিবারের উপর দু’দফা হামলায় আহত-৮

সংখ্যালঘু হিন্দু পরিবার
সংখ্যালঘু হিন্দু পরিবার

আজবাংলা ব্রাহ্মণবাড়িয়া বাড়ির সীমানা বিরোধকে কেন্দ্র করে পৌর কাউন্সিলের রফিকুল ইসলাম নেহারের নিকটাত্মীয় নুরুল হুদা দু’দফা হামলা চালায় সংখ্যালঘু হিন্দু জেলে পরিবারের নারী ও শিশু দের উপর। হামলায় আহতরা হলেন, কার্তিক বর্মণ-(৬৫), কৃষ্ণ বর্মণ-(৪৫), সাবিত্রী বর্মণ-(৪০), সেতু বর্মণ-(৪০), নুপুর বর্মণ-(১২), জবা বর্মণ- (১০), ইতি বর্মণ-(৬) ও পূজা বর্মণ-(৫)। আহতরা ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন। এ ব্যাপারে স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোঃ রফিকুল ইসলাম নেহার বলেন, ‘ঘটনাটি তেমন কিছু নয়। দুই পক্ষের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। বিষয়টি নিয়ে আমি আলোচনা করে মীমাংসা করে দিবো। হামলার শিকার পক্ষটি তাঁর কাছে আসেন নি বলে জানান।এ ব্যাপারে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ সেলিম উদ্দিন জানান, এ বিষয়ে কেউ কিছু জানায় নি। আমার জানাও নেই। তবে এ ধরণের অভিযোগ এলে অবশ্যই প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।বুধবার বিকেলে ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেস ক্লাবে হাজির হয়ে ভুক্তভোগীরা জানান, ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর সভার ভাদুঘর এলাকার ওয়ার্ড কাউন্সিলর রফিকুল ইসলাম নেহারের নিকটাত্মীয় নুরুল হুদার সাথে বাড়ির সীমানায় খুঁটি কোপা নিয়ে বুধবার সকাল সাতটার দিকে কার্তিক বর্মণের কথা কাটাকাটি হয়। এর জের ধরে নূরুল ইসলাম ও তার সহযোগীরা কার্তিক বর্মণকে মারধর করে। এ সময় তার ছেলে কৃষ্ণ বর্মণ এগিয়ে গেলে তাকেও মারধর করা হয়। পুনরায় বিকেলে নুরুল হুদার লোকজন কার্তিক ও তার পরিবারের লোকদেরকে মারধোর করে ও ঘর ভাংচুর করে লুটপাট করে।

এমন সমস্ত আপডেট পেতে লাইক দিন!