জাঁকিয়ে শীতের সঙ্গে পশ্চিমি ঝঞ্ঝা পূর্বাভাস হাওয়া অফিসের

আজবাংলা  দিনের বেলা চড়া রোদ আর সন্ধের পর জাঁকিয়ে ঠান্ডা, আগামী কয়েকদিন এমন আবহাওয়াই থাকবে গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গে। কলকাতায় পারদ ১২ ডিগ্রি সেলসিয়াসের আশেপাশে থাকলেও পশ্চিমাঞ্চলের জেলাগুলোয় পারদ নামতে পারে ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নীচে।আলিপুর আবহাওয়া দপ্তরের পূর্বাভাস, মকরসংক্রান্তিতে কলকাতার রাতের তাপমাত্রা ১৫ ডিগ্রির আশপাশে পৌঁছে যেতে পারে। মাঘের শুরুতেও দিনকয়েক শীতঘুমে থাকবে শীত।

আপাতত দক্ষিণবঙ্গে ভোরের দিকে কুয়াশা থাকলেও তা খুব ঘন হবে না। তবে সারাদিনই বইবে কনকনে উত্তুরে হাওয়া। সপ্তাহ শেষে জাঁকিয়ে শীত পড়বে কলকাতা-সহ দক্ষিণবঙ্গের বিভিন্ন জেলায় একথা আগেই জানিয়েছিল আলিপুর আবহাওয়া দফতর। সেই মতোই শনিবার কলকাতার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১২.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আর রবিবার শহরের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১২.৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। যা স্বাভাবিকের তুলনায় ২ ডিগ্রি কম। আলিপুর আবহাওয়া দফতরের আবহবিদদের পর্যবেক্ষণ, এখন শুকনো, হিমেল উত্তুরে-পশ্চিমি বাতাস বইছে বলে পারদ নিম্নমুখী।

মঙ্গলবার থেকে দুর্বল হয়ে পড়বে উত্তর ভারতের কনকনে বাতাস। ফলে পারদ চড়বে, কমবে ঠান্ডা। মৌসম ভবনের পূর্বাঞ্চলীয় প্রধান, উপমহানির্দেশক সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘পর পর দু’টি পশ্চিমি ঝঞ্ঝা ঢুকছে। তাই উত্তুরে বাতাসের গতিপথ রুদ্ধ হয়ে যাবে। একটি ঝঞ্ঝা এই মুহূর্তে কাশ্মীরে ঢুকেছে। এই ঝঞ্ঝাটি যেতে না-যেতেই বুধবার থেকে আরও একটি ঝঞ্ঝা চলে আসবে। সেটির রেশ যতদিন থাকবে, ততদিন ঠান্ডা পড়ার সম্ভাবনা কম থাকবে।’ তবে জোড়া ঝঞ্ঝার প্রভাবে প্রবল তুষারপাত হবে কাশ্মীর-হিমাচলে। তাই মাঘের গোড়ায় না-হোক, তার দিনকয়েকপর জাঁকিয়ে ঠান্ডার আশা রাখতেই পারেন শীতপ্রেমীরা।

এমন সমস্ত আপডেট পেতে লাইক দিন!