নীরবতা ভেঙে ক্ষমা চাইলেন মার্ক জুকেরবার্গ। ভারতীয় রাজনীতিতে তোলপাড়।

Facebook co Mark Zuckerberg
মার্ক জুকেরবার্গ
Facebook co Mark Zuckerberg
মার্ক জুকেরবার্গ

আজবাংলা তথ্য চুরি সম্পর্কে জুকেরবার্গকে হুঁশিয়ারি দিয়েছে ভারত সরকার। বলেছে, দরকারে তাঁকে এ দেশে এসে তদন্তের মুখোমুখি হওয়ার জন্য সমন পাঠানো হবে। এ দেশের নির্বাচনী প্রক্রিয়ার ওপর আইনবহির্ভূতভাবে প্রভাব খাটানোর চেষ্টা করলে তা বরদাস্ত করা হবে না বলে জানিয়েছেন তথ্য ও প্রযুক্তি মন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ। যোগাযোগ প্রযুক্তি এখন আমাদের জীবনের অংশ। কিন্তু আমরা যদি ব্যক্তিগত তথ্যের নিয়ন্ত্রণ রাখতে না পারি, তবে প্রযুক্তি আমাদের নিয়ন্ত্রণ নেবে। গণতন্ত্রের উন্নতির জন্য এটা চলতে পারে না। প্রকৃতপক্ষে তথ্যের অপব্যবহার নতুন কিছু নয়। দেখা যাচ্ছে যে মানুষের দৃষ্টিভঙ্গিতে প্রভাব ফেলতে ব্যক্তিগত অনেক অগুরুত্বপূর্ণ তথ্য মহাগুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠছে। ফেসবুকের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগের বিষয়ে আনুষ্ঠানিক বিবৃতি দিয়েছে ফেসবুক। কেমব্রিজ অ্যানালিটিকা কেলেঙ্কারির অভিযোগ কার্যত স্বীকার করে নিলেন ফেসবুক প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জুকেরবার্গ। ফেসবুক ভুল করেছে বলে মন্তব্য করেছেন তিনি, বলেছেন, ফেসবুক ব্যবহারকারীদের বিশ্বাসভঙ্গ করেছে তাঁর প্রতিষ্ঠান। এরপর জুকেরবার্গ বলেন, ভারতে বিরাট নির্বাচন হতে চলেছে, ব্রাজিলেও। এই ভোটগুলি যাতে স্বচ্ছভাবে হতে পারে, তার জন্য যা করার সব করবে ফেসবুক।তবে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ভোটে যে রাশিয়া নাক গলানোর চেষ্টা করে তা স্বীকার করে নেন তিনি। অভিযোগ উঠেছে, কেমব্রিজ অ্যানালিটিকা নামের একটি প্রতিষ্ঠানের অ্যাপ ব্যবহারের অনুমতি দিয়েছিল ফেসবুক। ওই অ্যাপের মাধ্যমেই কোটি কোটি ফেসবুক ব্যবহারকারীর ব্যক্তিগত তথ্য সংগ্রহ করে কেমব্রিজ অ্যানালিটিকা। সেই তথ্য পরে ব্যবহার করা হয় যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নির্বাচনী প্রচারের কাজে। এ কাজের সঙ্গে জড়িত এক অধ্যাপক সম্প্রতি মুখ খোলায় প্রকাশ্যে এসেছে সবকিছু। এখন পুরো বিষয় নিয়ে প্রশ্ন মুখে ফেসবুক।  তথ্য চুরি সম্পর্কে জুকেরবার্গকে হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন দরকারে তাঁকে এ দেশে এসে তদন্তের মুখোমুখি হওয়ার জন্য সমন পাঠানো হবে। এ দেশের নির্বাচনী প্রক্রিয়ার ওপর আইনবহির্ভূতভাবে প্রভাব খাটানোর চেষ্টা করলে তা বরদাস্ত করা হবে না বলে জানিয়েছেন তথ্য ও প্রযুক্তি মন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ।  সংবাদমাধ্যম সিএনএনকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে জাকারবার্গ বলেছেন, এ ঘটনার জন্য তিনি ‘সত্যিই দুঃখিত’। ‘দুর্বৃত্তপনায় যুক্ত অ্যাপ্লিকেশনগুলো’র বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বলেন তিনি। ফেসবুকের সাম্প্রতিক এ ‘কেলেঙ্কারি’ সম্পর্কে জবাবদিহি করার জন্য মার্কিন কংগ্রেসের শুনানিতে যেতে হবে জাকারবার্গকে। মার্কিন কংগ্রেসের শুনানিতে অংশ নেওয়া প্রসঙ্গে জাকারবার্গ বলেছেন, সঠিক কিছু করা গেলে কংগ্রেসে সামনে সানন্দেই পরীক্ষা দেবেন তিনি। ফেসবুকে দেওয়া এক পোস্টে জাকারবার্গ প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন যে এখন থেকে ফেসবুকের তথ্য সংগ্রহ কোনো অ্যাপের জন্য কঠিন কাজ হবে। জাকারবার্গ বলেছেন, ‘আপনাদের তথ্য সুরক্ষা করার দায়িত্ব আমাদের। আমরা যদি তা না পারি, তবে আমাদের সেবা দেওয়ার কোনো অধিকার থাকবে না।’ জাকারবার্গ বলেছেন, এখন তাঁর প্রতিষ্ঠান ফেসবুকের তথ্যে ঢোকার সুযোগ আছে—এমন সব অ্যাপ নিয়ে তদন্ত করবে। কোনো অ্যাপের কার্যক্রম সন্দেহ হলে পুরো ফরেনসিক পরীক্ষা হবে। অডিটে রাজি না হলে সব অ্যাপ বাতিল করা হবে। ভবিষ্যতে অ্যাপ নির্মাতাদের তথ্যের অপব্যবহার রোধে কার্যকর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। কোনো অ্যাপে সাইন ইন করার সময় নাম, ছবি আর ই-মেইল অ্যাড্রেসের বাইরে আর কিছু দেওয়া হবে না। কারও কাছ থেকে তথ্য নিতে হলে তাঁর অনুমতি নেওয়ার বাধ্যবাধকতা চালু হবে। এ ভুল থেকে শিক্ষা নেওয়ার কথাও বলেছেন জাকারবার্গ। বৃহস্পতিবার বিজেপি মুখপাত্র রবি শঙ্কর প্রসাদ কংগ্রেসের সঙ্গে লন্ডনের কেমব্রিজ অ্যানালিটিকার যোগ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন। ভোটারদের মানসিকতা চিহ্নিত করা এবং প্রভাবিত করতে ব্রিটিশ সংস্থা কেমব্রিজ অ্যানালিটিকার বিরুদ্ধে বিপুল সংখ্যক ফেসবুক ইউজারের ব্যক্তিগত তথ্য হাতানোর অভিযোগ উঠেছে। বিজেপি  অভিযোগ কংগ্রেস  ভোটারদের প্রভাবিত করতে কেমব্রিজ অ্যানালিটিকার পরিষেবা ব্যবহারের করেছে ।